আইনজীবীর বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা: ৫ দিন পেরিয়ে গেলেও আসামীরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে


প্রকাশিত : অক্টোবর ২৯, ২০১২ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: সাতক্ষীরা জজ কোর্টের আইনজীবী শফিউল ইসলামের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার পাঁচ দিন পেরিয়ে গেলেও পুলিশ কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি। এমনকি আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ানোয় বাদি ও তার পরিবারের সদস্যরা  রয়েছে নিরাপত্তাহীনতায়। সাতক্ষীরা জজ আদালতের বিশিষ্ট আইনজীবী শফিউল ইসলাম জানান, ২০০৮ সালে তিনি তার স্ত্রী সোহেলী আক্তারের নামে পলাশপোলের আবুল কালামের (বিআরটিএ) কাছ থেকে বাড়িসহ আট শতক জমি কেনার পর নামজারির মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ ভোগদখলে ছিলেন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, গত ২৪ অক্টোবর সকাল আটটার দিকে পলাশপোলের আলতাফ হোসেন (ড্রাইভার), কবীর খান চৌধুরীর ছেলে মাহাবুব হোসেন খাঁন চৌধুরীসহ ২৫-৩০জন সন্ত্রাসী হাতে দা,লোহার রড, শাবল, লাঠি দিয়ে বাড়ির প্রাচীর ভাঙচুর করে। প্রতিবাদ করায় স্ত্রীসহ তাকে মারপিট করা হয়। পরে সন্ত্রাসীরা  অস্ত্র দেখিয়ে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে তার বসত ঘরে ঢুকে আলমারির ড্রয়ার ভেঙে ৫৩ হাজার টাকা ও ব্যবহৃত জিনিসপত্রসহ লক্ষাধিক টাকার মালামালা লুট করে। এ ঘটনায় তিনি বাদি হয়ে ২৪ অক্টোবর রাতে আলতাফ হোসেনসহ ছয়জনের নামে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেন। তড়িঘড়ি করে এজাহারে দ্বিতীয় আসামী মাহবুব হোসেন খান চৌধুরী ও তার বাবার নাম কবীর হোসেন খান চৌধুরীর স্থলে ভুল করে মোখলেছুর রহমান খান চৌধুরীর ছেলে মাহাবুবর রহমান খান চৌধুরীর নাম উল্লেখ করা হয়।

তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার পাঁচ দিন পেরিয়ে গেলেও পুলিশ এখনো কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি। উপরন্তু আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়িয়ে তাকে ও তার পরিবারের সদস্যদের মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি ধামকি দিচ্ছে। সাতক্ষীরা সদর থানার উপপরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা জুলফিকার আলী আসামীরা পলাতক রয়েছে উল্লেখ করে বলেন, ঈদের ছুটিতে বাড়িতে আসার কারণে মামলার কার্যক্রম কিছুটা ব্যাহত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার থানায় ফিরে আসামীদের গ্রেফতারের জন্য চিরুনি অভিযান চালানো হবে। এদিকে আইনজীবী শফিউল ইসলামের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় নিন্দা, আসামীদের গ্রেফতার ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাড. আব্দুল মজিদ, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড, ওসমান গনিসহ আইনজীবী সমিতির সদস্যরা।