আ.লীগ-জামায়াতের নেতারা নিয়ে গেছে জাপা নেতার ঝাড়ের বাঁশ ও পুকুরের মাছ


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৯, ২০১৩ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: ফিল্মী স্টাইলে প্রতিপক্ষের জমি থেকে বাঁশ কেটে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। শুধু বাঁশ কেটেই ক্ষ্যান্ত হয় নি দুর্বৃত্তরা। তারা পুকুর থেকে মাছ ধরে রীতিমতো হল্লা দিয়ে উল্লাস প্রকাশ করেছে। জমির মালিক জাহাঙ্গীর কবীরের এ দৃশ্য দেখা ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কোমরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ধুলিহর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক মঈনুল ইসলামের নেতৃত্বে ৩০/৩৫ দুর্ধর্ষ যুবক এ ঘটনা ঘটায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। গ্রামবাসী জানায়, কোমরপুর গ্রামের আব্দুল গফফার মোল্যার ছেলে শফিকুল ইসলাম (৩৬), একই গ্রামের মৃত কফিল উদ্দীনের ছেলে মঈনুল ইসলাম (৩৫) গত সোমবার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলনে যথাক্রমে সভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদক মনোনীত করে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। শফিকুল ইসলাম নিজেই  জামায়াত-শিবিরের কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। তার পিতা মাতা-চাচা-চাচি সবাই জামায়াতের সক্রিয় কর্মী। শফিকুল ইসলাম কে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মনোনীত করার পর দিনই বেপরোয়া হয়ে সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবিরের বাঁশ ঝাড় থেকে ৪০টি বাঁশ কেটে নেয় শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে কথিত আওয়ামী লীগ নেতারা। বাঁশ কাটার পর আওয়ামী-জামায়াতের ওই নেতারা জাহাঙ্গীর কবিরের পুকুর থেকে কমপক্ষে ৭/৮মন মাছ ধরে নিয়ে যায়। ওই দলে একই গ্রামের মৃত আরিফ সরদারের ছেলে জামায়াত নেতা আফিল উদ্দীন (৩৫) কেও দা-কুড়াল নিয়ে বাঁশ কাটতে ও জাল ফেলে মাছ ধরতে দেখেন গ্রামবাসী।

এ ব্যাপারে জাহাঙ্গীর কবীর বাদী হয়ে সাতক্ষীরা সদর থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।