কালিগঞ্জে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে ঘের দখলের চেষ্টা


প্রকাশিত : জানুয়ারি ১০, ২০১৩ ||

বিশেষপ্রতিনিধি: সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ঘেরের মাছ লুটপাটের পর আবারও আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কালিগঞ্জে একটি মাছের ঘের জবরদখলের জন্য পায়তারা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।  এ ঘটনায় যে কোন মুহূর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী ধারণা করছেন।

লিখিত অভিযোগ ও বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, উপজেলার ভাড়াশিমলা ইউনিয়নের কামদেবপুর গ্রামের হারুন অর রশিদ গাজী পৈত্রিক ও খরিদা সূত্রে ৩৪নং জেএল কামদেবপুর মৌজায় এস এ ২৫,৪৪, ৮৪, ৮৫,৮৬ সহ বিভিন্ন দাগে ৭৬ শতাংশ জমিতে প্রায় ২০/২৫ বছর যাবত ভোগ দখলরত অবস্থায় মাছের ঘের করে আসছেন। জমিটি নিয়ে কামদেবপুর গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দীনের ছেলে ফজলুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম গংদের সাথে বিরোধ সৃষ্টি হওয়ায় আদালতে মামলা দায়ের করা হয় যার নম্বর: দেওয়ানী ৬৩/১২। বর্তমানে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে এবং ওই মামলায় বিবাদী পক্ষকে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেছেন। এছাড়াও আদালতে ৪৫ ধারায় একটি পিটিশন মামলা বিচারাধীন রয়েছে যার নম্বর: পি ২৩৫/১২। এমতাবস্থায় আদালতের নির্দেশকে অমান্য করে ফজলুল হক গং গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর সকাল ৮টার দিকে তারিখ ২৫/৩০ জনের সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে তারা মাছের ঘেরে লুটপাট চালিয়ে ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে। তারা নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে থানার ওসিকে ম্যানেজ করে আদালতে বিচারাধীন বিষয়ে অবৈধভাবে হস্তক্ষেপের মাধ্যমে গত ১৫/১২/১২ তারিখে উল্টো হারুনর রশিদকে থানায় নোটিশ করে ডেকে নিয়ে পুলিশ তাকে ওই জমিতে যেতে নিষেধ করেন। থানা পুলিশের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রতিকার চেয়ে ভুক্তভোগী হারুন অর রশিদ কালিগঞ্জ সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার বরাবর আবেদন করেন। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে ক্ষিপ্ত হয়ে ফজলুল হক গং আবারও সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে মাছের ঘের দখল ও লুটপাটের পায়তারা করছে বলে জানিয়েছেন হারুন অর রশিদ। ফজলুল হক, নুরুল ইসলাম, ডালিম, খালেক গং ও তাদের সন্ত্রাসী বাহিনীর নির্যাতন, দখল ও লুটপাটের হাত থেকে রেহাই পেতে ভুক্তভোগী হারুন অর রশিদ বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় কালিগঞ্জ রিপোটার্স ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে উর্দ্ধতন প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।