শ্যামনগরের কাশিমাড়ীতে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ১


প্রকাশিত : March 9, 2013 ||

শ্যামনগর প্রতিনিধি: শুক্রবার বিকালে শ্যামনগরের কাশিমাড়ীতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি-জামায়াত ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এ সময় কাশিমাড়ী বাজার থেকে জয়নগর এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। আশংকাজনক অবস্থায় গুলিবিদ্ধ রেজাউল করিমকে (৩৫) শ্যামনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পর রাতে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গোটা এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কাশিমাড়ী বাজারে আ.লীগ নেতা-কর্মীদের সাথে বিএনপি-জামায়াত নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এসময় ইউনিয়ন কৃষকলীগ’র সেক্রেটারি সানাউল্লাহসহ বিএনপি ও আ.লীগের প্রায় সতের জন কর্মী সমর্থক আহত হয়।
জানা গেছে, ঐ ঘটনার সূত্র ধরে শুক্রবার বিকালে কাশিমাড়ী বাজারে ইউনিয়ন আ.লীগের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ সমাবেশ আহবান করা হয়।
এদিকে পূর্ব নির্ধারিত সমাবেশে যোগ দিতে বিকালে শ্যামনগর উপজেলা আ.লীগ নেতৃবৃন্দ কাশিমাড়ী রওনা হওয়ার পর দ্রুত খবর ছড়িয়ে পড়ে, আ.লীগ নেতৃবৃন্দ কাশিামড়ী পৌছালে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে। এখবরে পুলিশ তৎপর হয় এবং পুলিশ প্রহরায় বিকালে আ.লীগ নেতারা কাশিমাড়ী বাজারে যেয়ে নির্ধারিত সমাবেশে বক্তব্য রেখে আগের দিনে নিজেদের নেতা-কর্মীদের উপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জানান। এসময় তারা কাশিামাড়ী বাজারে অবস্থিত ইউনিয়ন বিএনপি অফিস ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় বিএনপি-জামায়াত নেতা-কর্মীদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হলে পুলিশ প্রহরায় আ.লীগ নেতাকর্মীরা মিছিল সহকারে শ্যামনগর অভিমুখে ফিরে আসার চেষ্টা করে। এসময় মিছিলের পিছনের একটি অংশের বিক্ষুব্ধ কয়েকজন কর্মী সমর্থক জয়নগর মোড়ে বিরোধীদের লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে পুলিশ জয়নগর মাদ্রাসা এলাকায় পৌঁছে উত্তেজিত জনতাকে ছত্রভংগ করতে পাঁচ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এসময় জয়নগর গ্রামের আমিনউদ্দীন গাজীর ছেলে রেজাউল করিম কোমরে ও পশ্চাতদেশে গুলি বিদ্ধ হয়।
শ্যামনগর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক জানিয়েছেন, রেজাউলের শরীরে আটটি গুলিবিদ্ধ হয়েছে। আহতকে তাৎক্ষণিকভাবে শ্যামনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পাঁচ রাউন্ড গুলি বর্ষণের কথা নিশ্চিত করেছে।