জেলায় জামায়াত-শিবিরের ৪০ কর্মী গ্রেপ্তার


প্রকাশিত : মার্চ ১০, ২০১৩ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: জেলায় সাম্প্রতিক সহিংসতার ঘটনায় জামায়াত-শিবিরের ২৩ কর্মীসহ ৪০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোরে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ছনকা গ্রামের আব্দুস সামাদ দফাদার (৪২), একই গ্রামের মিলন হোসেন (২১), আবুল হোসেন সরদার (১৮), সাসুদপুর গ্রামের আবুল গাজী (১৮), ভাড়–খালি গ্রামের মনিরুল কারিকর (২৫), একই গ্রামের মফিজুল সরদার (২২), শ্যামনগর উপজেলার শ্রীফলবাটি গ্রামের হাফেজ মনিরুজ্জামান গাজী (৩০), একই এলাকার আব্দুল খালেক গাজী (৫৫), একই গ্রামের শহীদুল মোল¬া (৩৭), হরিনগর গ্রামের রহমান গাজীর ছেলে রফিকুল গাজী (৩৮), মথুরাপুর গ্রামের মাহাফুজুর রহমান (৫৩), মুন্সিগঞ্জ গ্রামের তোফায়েল গাজী (৫২), একই গ্রামের মিজানুর রহমান (৫৪), কাশিমাড়ি গ্রামের আব্দুল মান্নান গাজী (৫২), মোনায়েম সরদার (২০), সাহারিয়ার হক (২০), কলারোয়া উপজেলার খলসী গ্রামের আব্দুল হামিদ, হেলাতলা গ্রামের জামসেদ মোড়ল (৫৫), তার ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান (৩০), মতিয়ার রহমান (৪০), একই গ্রামের হাবিবুর রহমান (৩২) ও তবিবুর রহমানসহ (৩০) ৪০ জন।
পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান জানান, ২৮ ফেব্র“য়ারি ও পরবর্তীতে জেলার বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা ছড়িয়ে হত্যা, অগ্নিসংযোগ, জননিরাপত্তা বিঘিœতকরণ, সড়ক অবরোধ, পুলিশের ওপর হামলা ও সরকারি কাজে বাধাদানসহ নানা অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় জেলার বিভিন্ন স্থান তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হবে। এছাড়া প্রত্যেককে রোববার নিজ নিজ থানার মাধ্যমে আদালতে রিমান্ডের আবেদন জানানো হবে।
এদিকে আমাদের কলারোয়া প্রতিনিধি জানান, কলারোয়া থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে জামায়াত-শিবিরের ৬ নেতা-কর্মী-সমর্থককে আটক করেছে।
কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মোশাররফ হোসেন শনিবার সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানা পুলিশ শনিবার ভোররাতে অভিযান চালিয়ে উপজেলার হেলাতলা গ্রাম থেকে উপজেলার খলসী গ্রামের আতর আলির ছেলে আব্দুল হামিদ (৩৫), হেলাতলা গ্রামের তোজাম আলির ছেলে জামসেদ মোড়ল(৫৫), তার ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান (৩০), আলি মাহমুদের ছেলে মতিয়ার রহমান (৪০), একই গ্রামের মোহাম্মদ আলির ছেলে হাবিবুর রহমান (৩২) ও তবিবুর রহমান (৩০) কে আটক করে। আটককৃতরা সবাই জামায়াত-শিবিরের কর্মী ও সমর্থক বলে জানা গেছে।
কলারোয়া থানার ওসি সিকদার আক্কাছ আলী জানান, সম্প্রতি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা, অগ্নিসংযোগ, জননিরাপত্তা বিঘিœতকরণ, সড়কে গাছ ফেলে অবরোধ, পুলিশের ওপর হামলা ও সরকারি কাজে বাধাদানসহ নানা অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় তাদের আটক করা হয়েছে।
পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি জানান, পাটকেলঘাটা থানার কুমিরা ইউনিয়ন জামায়াতের আমীর মাও. জাকির হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোর ৪টায় নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি মেলেকবাড়ী মাদ্রাসার শিক্ষক।
শ্যামনগর প্রতিনিধি জানান, শ্যামনগর থানা পুলিশ গত শুক্রবার গভীর রাতে বিএনপি-জামায়াতের ১০ নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। আটককৃতদের বিরুদ্ধে পুলিশের উপর হামলাসহ কর্তব্য কাজে বাধা দান ও স্থানীয় আ.লীগ অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ রয়েছে।
গ্রেফতারকৃতরা হলো মুন্সিগঞ্জের মৃত ফনিরুদ্দীন গাজীর ছেলে তোফাজউদ্দীন গাজী (৫২), মনিরুদ্দীন তরফদারেরর ছেলে মিজানুর রহমান (৪৪), মৃত ওয়াহেদ বক্স গাজীর ছেলে আব্দুল মান্নান (৫০) ও আব্দুল খালেক (৫৫), গফুর মোল্যার ছেলে শহিদুর ইসলাম মোল্যা (৩৭), হরিনগর গ্রামের আব্দুর রহমান গাজীর ছেলে রফিকুল ইসলাম গাজী (৩৮), মথুরাপুর গ্রামের আবু বক্কার গাজীর ছেলে মাহফুজুর রহমান মোতালেব (৫১), বুড়িগোয়ালীনি গ্রামের আবু হানিফ গাজীর ছেলে ফয়সল ইসলাম গাজী (২০), কাশিমাড়ী গ্রামের আব্দুর রশিদ সরদারের ছেলে মোনায়েম হোসেন সরদার (২০), নুরুল হক তরফদারের ছেলে টিএম শাহরিয়া হক জয় (২০)।
শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আহসান হাবীব জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে জ্বালাও পোড়াওসহ পুলিশের উপর হামলার অভিযোগে মামলা রয়েছে।
কালিগঞ্জ থেকে বিশেষ প্রতিনিধি জানান, নলতায় প্রশাসন জারিকৃত ১৪৪ ধারা ভঙ্গের ঘটনায় কালিগঞ্জ থানায় দায়েরকৃত মামলায় ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দিবাগত রাতে কালিগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুজিবর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ নিজ নিজ বাড়ি থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করেন।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলো উপজেলার শিবপুর গ্রামের সামাদ আলী বিশ্বাসের ছেলে কবির হোসেন (২২), আজিজ ঢালীর ছেলে আরিফুল ইসলাম (২৪), মৃত শরিফুল্যাহ ঢালীর ছেলে আকতার ঢালী (২৮), বেজোরআটি গ্রামের আব্দুল কাদের ঢালীর ছেলে হোসেন আলী (২৫) ও আরশাদ ঢালীর ছেলে শফিকুল ইসলাম (২১)। তবে পুলিশ ১০ জনকে আটক করলেও পরবর্তীতে ৫ জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে গতকাল জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। প্রসঙ্গত, টানা ৩ দিনের হরতালকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সড়কের পাশ্ববর্তী গাছ কেটে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, নাশকতা সৃষ্টি, ১৪৪ ধারা ভঙ্গসহ বিভিন্ন অভিযোগে কালিগঞ্জ থানায় পৃথক ৭টি মামলা দায়ের করা হয়। এর মধ্যে ১৪৪ ধারা ভঙ্গের অভিযোগে কালিগঞ্জ থানার এসআই বিল¬াল হোসেন বাদী হয়ে গত ০৫/০৩/১৩ তারিখে একটি মামলা দায়ের করেন যার নম্বর ০৩। এ মামলায় ২৯ জনের নাম উলে¬খসহ অজ্ঞাতনামা ৮ থেকে ৯ হাজার ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে।
আশাশুনি প্রতিনিধি জানান, শুক্রবার দিবাগত রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে গাছ কেটে সড়ক অবরোধ করার অভিযোগে আশাশুনির বিভিন্ন এলাকা থেকে ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো কুল্যা গ্রামের মনছুর আলির পুত্র রানা, হাড়িভাংগা গ্রামের জামায়াত নেতা আফসার উদ্দিন সরদারের পুত্র শিবির কর্মী মাসুম বিল্লাহ এবং নৈকাটি গ্রামের মৃত শামছুদ্দিনের পুত্র ভ্যান চালক মোজাম।