রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাংলা সাহিত্যের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র: শ্রম প্রতিমন্ত্রী


প্রকাশিত : মে ১১, ২০১৩ ||

পত্রদূত ডেস্ক: শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাংলা সাহিত্যের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। বাংলা সাহিত্যের প্রতিটি শাখা তাঁর হাতের ছোঁয়ায় সমৃদ্ধ হয়েছে। তাঁর নোবেল প্রাপ্তি বাংলাভাষা ও সাহিত্যেকে আন্তর্জাতিক অঙ্গণে ব্যাপক পরিচিত এনে দিয়েছে। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর সাহিত্যে আমাদের এক মূল্যবান সম্পদ।
প্রতিমন্ত্রী শুক্রবার বিকেলে ফুলতলা দক্ষিণডিহির মৃণালিনী মঞ্চে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫২তম জন্মবার্ষিকী ও নোবেল প্রাপ্তির শতবর্ষ পূতি উপলক্ষে তিন দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের সমাপনী দিনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
তিনি আরও বলেন, রবীন্দ্রনাথের লেখনীর বহুমাত্রিকতা বাংলা সাহিত্যেকে সমুজ্জ্বল করেছে। কবির মনন, দর্শন, প্রজ্ঞা ও মানবিকতা বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ এবং বিশ্ব সাহিত্যে বাংলা ভাষার মর্যাদাকে সমুন্নত করেছে। প্রতিমন্ত্রী নতুন প্রজন্মদের রবীন্দ্র চর্চার উপর গুরুত্বারোপ করেন।
অনুষ্ঠানে সভপতিত্ব করেন ফুলতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য বেগম নূর আফরোজ আলী, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান, খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মকবুল হোসেন মিন্টু এবং সমাজ সেবক প্রফেসর ড. মাহাবুব-উল ইসলাম। অন্যান্যর মধ্যে বক্তৃতা করেন ফুলতলা উপজেলা চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন সরদার, ফুলতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমদাদ হোসেন, ফুলতলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এসএম মোস্তাফিজুর রহমান, ফুলতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ আবুল বাশার, ফুলতলা উপজেলা জাতীয় পাটির সভাপতি এম জোহর আলী মোড়ল এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আশরাফ হোসেন আশু। অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন রবীন্দ্র গবেষক ও সাংবাদিক বিধান দাশগুপ্ত।
পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। এতে রবীন্দ্র শিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা অংশগ্রহণ করেন।