কপিলমুনিতে মোবাইল প্রতারণা: ‘হ্যালো স্যার আপনার গাড়ি বেধেছে’


প্রকাশিত : মে ১৮, ২০১৩ ||

পলাশ কর্মকার/পলাশ মজুমদার, কপিলমুনি: কপিলমুনিতে মোবাইল প্রতারণার শিকার হয়েছেন অনিমেশ শীল (১৮) নামের এক কলেজ শিক্ষার্থী। শুক্রবার সকালে উপজেলার কপিলমুনির কাশিম নগর বাজারে এ ঘটনা ঘটে।
জানাগেছে, সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে ০১৭৮১-৭৭৭১৫৬ নম্বর থেকে উপজেলার কাশিমনগর গ্রামের অসীত শীলের পুত্র অনিমেশ শীলের ০১৭৪১-৬০৯৭২১ নম্বর মোবাইলে গ্রামীণ ফোনের কাস্টমার কেয়ার সেন্টারের পরিচয় দিয়ে জানানো হয়, প্রতিবারের ন্যায় এবারো লটারির মাধ্যমে বিজয়ী নির্ধারণ করা হয়েছে। তার নম্বরটি ২য় স্থান অধিকার করেছে। এজন্য তিনি গ্রমীণ ফোন কোম্পানি থেকে পাচ্ছেন একটি গাড়ি অথবা ১২,৭৫,০০০ টাকা। তবে এজন্য তাকে প্রথমে ৩৫০ টাকা ফ্লেক্সিলোড ও পরে ৮,৫০০ টাকা বিকাশ করে পাঠাতে হবে, ০১৭৭৯-০৪০৬০৯ নম্বরে। আরো জানানো হয়, টাকা গুলো তার কাছে না পৌঁছানো পর্যন্ত যেন বিষয়টি কাউকে জানানো না হয়। অনিমেশ মোবাইলে বিজয়ের খবর পেয়ে খুশীতে বিষয়টি প্রথমে জানায় তার বাবা অসীত শীলকে। বাবা তাকে ৩৫০ টাকা দিলে তিনি ওই টাকা নিয়ে ওই নম্বরে ফ্লেক্সি লোড দেন। পরে কাশিমনগর বাজারের জিএম হাসান ইমামের মোবাইল’র দোকানে গিয়ে জানান, তার রোগী খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি এখনি ৮,৫০০ টাকা পাঠাতে হবে। এসময় দোকানি তার কাছে আইডি নং চাইলে তিনি প্রতারকদের দেয়া উপরিউক্ত নম্বরটি দিলে টাকাগুলো পাঠিয়ে দেয়া হয়। আর তখনই বাধে বিপত্তি, দোকানদার তার কাছে বিকাশে পাঠানো টাকা চাইলে সে জানায়, তার কাছে কোন টাকা নেই, আধা ঘণ্টা পরে মোবাইলে তার টাকা আসছে, আসলে দেয়া হবে। এসময় দোকানি ও উপস্থিত লোকজন তাকে আটকে রেখে তার বাড়িতে খবর পাঠায়। বাড়ি থেকে লোকজন আসলে সে পুরো ঘটনাটি জানালে তার বাবা দোকানিকে সমুদয় টাকা দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান। আর ততক্ষণে বিষয়টি যে প্রতারণা এবং সে প্রতারিত হয়েছে, তা পরিষ্কার হয়। সর্বশেষ প্রতারক চক্রের নম্বরগুলোতে রিং দিলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।