পর্যালোচনা সভায় মানব পাচার প্রতিরোধ আইনের শাস্তি ও পরিণতি সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির আহ্বান


প্রকাশিত : মে ২৩, ২০১৩ ||

 

শহর প্রতিনিধি: মানব পাচার প্রতিরোধ আইন ২০১২ পর্যালোচনা বিষয়ক এক মতবিনিময় সভা বুধবার সকাল ১১টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওয়ার্ড ভিশন বাংলাদেশ চাইল্ড সেফটি নেট প্রজেক্টের আওতায় এ সভার আয়োজন করে।

সভায় প্রেস ক্লাবের সভাপতি আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড. শাহ আলম, জজ কোর্টের পিপি এড. মোস্তফা লুৎফুল্লাহ ও ওয়ার্ড ভিশনের সাতক্ষীরা এরিয়া ম্যানেজার স্বপন মন্ডল। মূল বিষয়বস্তু উপস্থাপন করেন প্রকল্প কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান।

সভায় মানবপাচার প্রতিরোধ আইন-২০১২ পর্যালোচনা করতে গিয়ে বক্তারা এ আইনের অনেক খুটিনাটি বিষয় তুলে ধরেন। আইনে মানব পাচারের সাথে জড়িতদের আরো কঠোর শাস্তির বিধান রাখার জন্য সুপারিশ করেন। আইনের সাক্ষীদের সুরক্ষা ও ভিকটিমের ক্ষতিপূরণের বিধান রাখা হয়েছে, যা আর কোন আইনে নেই। আদালত, আইনজীবী ও তদন্তকারী সংস্থাকে এ আইন বাস্তবায়নে কঠোর ভূমিকা পালন করতে হবে। মানব পাচারের ভয়াবহ পরিণতির কথা তুলে ধরে বক্তারা গ্রামে গ্রামে পাড়ায় পাড়ায় এ আইনের শাস্তি ও পরিণতি সম্পর্কে জন সচেতনতা সৃষ্টির আহ্বান জানান।

বক্তরা আরো বলেন, সাতক্ষীরা সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় মানব পাচারের ঝুকি বেশি। তাই মানব পাচার প্রতিরোধে সকলকে সচেতন হয়ে প্রতিরোধ করতে হবে। একই সাথে মানব পাচার প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর কয়েকটি ধারা সংস্কার করে যুগোপযোগী করতে হবে।

সভায় চাইল্ড সেফটি নেট প্রজেক্টের কো-অর্ডিনেটর হাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন ও উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মনিরুল ইসলাম মিনি, বর্তমান সহ-সভাপতি আব্দুল ওয়াজেদ কচি, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক কল্যাণ ব্যানার্জি, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মমতাজ আহমেদ বাপি, আব্দুল বারী, এম. কামরুজ্জামান, বর্তমান যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ইয়ারব হোসেন, জনকন্ঠের মিজানুর রহমান, মাছরাঙার মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল, ওয়ার্ল্ড ভিশনের কর্মকর্তা জুলিয়াস আর্থার সরকার প্রমুখ।