কালীগঞ্জে পাঁচটি বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, ২৮ ভরি সোনার গহণা, ৬০ হাজার নগদ টাকা ও লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৩, ২০১৪ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পাঁচটি বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংগঠিত হয়েছে। বুধবার গভীর রাতে কালীগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় তারা ২৮ ভরি সোনার গহনা, ৬০ হাজার টাকা ও লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করেছে।
কৃষ্ণনগর ইউপি চেয়ারম্যান আনছার আলী জানান, ১৫/১৬ জনের এক দল সশস্ত্র ডাকাত বুধবার রাত ১২টার দিকে গোয়ালঘেসিয়া নদী থেকে ট্রলারযোগে এসে বেড়িবাঁধের উপরে ওঠে। এ সময় তারা বেড়িবাঁধের নিকটবর্তী আফিল গাজীর ছেলে আনছার গাজীর বাড়িতে দরজা খুলতে বলে। দরজা খোলার পর তারা ওই পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রে মুখে জিম্মি করে বেঁধে ফেলে আলমারি ও বাক্স ভাঙচুর করে নগদ ২০ হাজার টাকা, ১৫ ভরি সোনার গহনা ও ৩০ হাজার টাকার জিনিসপত্র লুট করে। একইভাবে তারা পার্শ্ববর্তী মোজাম্মেল ঢালীর ছেলে রফিকুল ঢালীর বাড়ি থেকে নগদ ১২ হাজার টাকা, পাঁচ ভরি সোনার গহনা, ৩০ হাজার টাকার মালামাল লুট করে। জলিল ঢালীর ছেলে জাকারিয়া ঢালীর বাড়ি থেকে নগদ এক হাজার টাকা, দু’টি মোবাইল সেট ও ১০ হাজার টাকার মালামাল, শেখ তমিজউদ্দিনের ছেলে শেখ আব্দুল কুদ্দুসের বাড়ি থেকে পাঁচ ভরি সোনার গহনা, সাড়ে তিন হাজার টাকা , একটি মোবাইল ও সাত হাজার টাকা মূল্যের মামলামাল, মোহাম্মদ গাজীর ছেলে গণি গাজীর বাড়ি থেকে তিন ভরি সোনার গহণা ও নগদ ১০ হাজার টাকাসহ ২৫ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়। পাঁচটি বাড়িতে দু’ ঘণ্টা ধরে এ ডাকাতি সংগঠিত হয়।
ক্ষতিগ্রস্ত জাকারিয়া ঢালী জানান, তাদের কাছে টাকা ও সোনার গহণা বেশি না পাওয়ার পরিবারের তিনজনকে বন্দুকের বাট দিয়ে পিটিয়ে জখম করেছে মুখোশধারী ডাকাত দলের সদস্যরা। কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী আযম খান বলেন, তিনি বুধবার সারা রাত ও গতকাল সকাল সাড়ে ১১টা পর্যন্ত যৌথবাহিনীর সঙ্গে অভিযানে ছিলেন। তাই এ ধরণের কোন অভিযোগ তার জানা নেই।
কালীগঞ্জ সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ মনিরুজ্জামান জানান, গতকাল সকালে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে খবর পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।