কাল জেলার ২টি আসনে নির্বাচন: কড়া নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে প্রতিটি এলাকা


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৪, ২০১৪ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: আগামীকাল সাতক্ষীরার ৪টি আসনের মধ্যে ২টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। দু’টি নির্বাচনী এলাকায় ২৭৭টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে সব গুলো ভোট কেন্দ্রকে ঝুকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাতক্ষীরার ৪টি আসনের মধ্যে সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) ও সাতক্ষীরা-২(সদর) আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বাকী সাতক্ষীরা-৩ ও সাতক্ষীরা-৪ এই ২টি আসনে একজন করে প্রার্থী থাকায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা: আ ফ ম রুহুল হক ও স ম জগলুল হায়দার ইতোমধ্যে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।
জেলা রিটানিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, সাতক্ষীরা-১ আসনে মোট ভোটার ৩,৮০,২০৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১,৮৮,৬০৯ জন এবং মহিলা ভোটার ১,৯১,৫৯৯জন। এই আসনে ১৪৬টি ভোট কেন্দ্র ও ৭৮৪টি ভোট কক্ষ স্থাপন করা হয়েছে। এই আসনে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ১৪৬ জন প্রিজাইটিং অফিসার, ২৯২ জন সহকারী প্রিজাইটিং অফিসার ও ৫৮৪ জন পলিং অফিসার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এই আসনে ২ জন প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। এর মধ্যে ১৪ দলীয় জোটের প্রার্থী জেলা ওয়ার্কস পার্টির সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুস্তফা লুৎফুল্লাহ নৌকা প্রতীক এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম মুজিবর রহমান হরিণ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন।
সাতক্ষীরা-২ আসনে মোট প্রার্থী ৪ জন। মোট ভোটার ৩,১৪,২৭৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১,৫৬,২৬৪ জন ও মহিলা ১,৫৮,০১৩ জন। এ আসনে ১৩১টি ভোট কেন্দ্র, ৬২৮টি ভোট কক্ষ স্থাপন করা হয়েছে। ভোট কেন্দ্র গুলোতে ১৩১ জন প্রিজাইটিং, ২৬২ জন সহকারী প্রিজাইটিং অফিসার ও ৫২৪ জন পলিং অফিসার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪ জন প্রার্থী। এদের মধ্যে ১৪ দলীয় জোটের প্রার্থী আওয়ামী লীগের মীর মোস্তাক আহম্মেদ রবি নৌকা প্রতীক, জেলা ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক কাজী সাঈদুর রহমান কুড়েঘর প্রতীক, স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি ছাইফুল করিম সাবু হরিণ ও জাতীয় পার্টির (জেপি) মহাসিন হোসেন বাবলু বাইসাইকেল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। সাতক্ষীরায় যে দু’টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে সেখানে লড়াই হবে মূলত: ১৪ দলীয় জোটের প্রার্থী এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী নামধারী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর মধ্যে।
এদিকে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানাগেছে, সাতক্ষীরার দু’টি নির্বাচনী এলাকায় ২৭৭টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে সব গুলো ভোট কেন্দ্রকে ঝুকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে। ২টি নির্বাচনী এলাকায় ১ জন সাবইন্সপেক্টরের নের্তৃত্বে ৪১টি বিশেষ টিম নিয়োগ থাকবে। ১৪ জন নির্বাহী ম্যাজিস্টেটের নেতৃত্বে মোবাইল কোর্ট থাকবে। এর বাইরে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্টেটের নেতৃত্বে আরও ৪টি বিশেষ টিম কাজ করবে। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেটের নেতৃত্বে ২ থেকে ৪টি ইলেকট্ররাল টিম কাজ করবে। সেনাবাহিনীর সদস্যরা স্টাইকিং ফোর্স হিসেবে স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তা করবে। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১৫ জন আনসার সদস্যসহ পর্যাপ্ত পুলিশ ও বিজিবি নিয়োগ করা হবে।