তালার নাংলা ফাজিল মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রে জামায়াতের তাণ্ডব


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৬, ২০১৪ ||

পত্রদূত ডেস্ক: সাতক্ষীরা-১ আসনে (তালা-কলারোয়া) নাংলা ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসা কেন্দ্রে দা, কুড়াল, চাপাতি নিয়ে ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছেন জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মীরা। তাঁরা কেন্দ্রের পোলিং এজেন্টদের কাছ থেকে ভোটার তালিকা ছিনিয়ে নেন। আনোয়ারা বেগম (৫৪) নামের একজন নারী ভোটারকে তাঁরা তুলে নিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এদিকে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মহাবিদ্যালয় কেন্দ্রে ঢুকে ভোটারদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগে তালা ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহীনুর রহমান শাহিনকে গ্রেপ্তার করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী সরদার মুজিবের পক্ষে কাজ করছিলেন বলে জানা গেছে। তালার ইসলামকাটী ইউনিয়ন জামায়াত-অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে পরিচিত। এই ইউনিয়নে পাঁচটি কেন্দ্র রয়েছে। বেলা ১১টার দিকে নাঙলা ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসা কেন্দ্রে জামায়াত-শিবিরের তিন-চার’শ কর্মী হামলা চালান। তাঁরা পোলিং এজেন্টদের কাছ থেকে ভোটার তালিকা ছিনিয়ে নেন। বাইরে থাকা পোস্টার ছিঁড়ে ফেলেন। একটি সাইকেলে আগুন দেন। সকাল থেকেই জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা লাঠিসোঁটা হাতে এই কেন্দ্রের দখল নেন। এই তাণ্ডব চলার সময় কেন্দ্রে মাত্র দুজন পুলিশ সদস্য ছিলেন। তবে দুপুর ১২টার দিকে পুলিশ, বিজিবির সদস্যরা গিয়ে ৪০টি ফাঁকা গুলি ছোড়ে তাঁদের সরিয়ে দেন।
শেখ এনামুল হক নামের এক যুবক অভিযোগ করেন, ভোট দিতে আসায় তাঁর মা আনোয়ারা বেগমকে তুলে নিয়ে গেছে জামায়াত-শিবির। ইসলামকাটী ইউনিয়নের বেশির ভাগ কেন্দ্রের প্রবেশপথে বিদ্যুতের খুঁটি, বাঁশ এবং গাছ কেটে অবরোধ সৃষ্টি করা হয়। সাতক্ষীরা-১ আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ৮০ হাজার ২০৮ জন। মোট কেন্দ্র ৬৯টি। সকাল থেকে বেলা একটা পর্যন্ত বেশির ভাগ কেন্দ্রে ১০০ থেকে ১৫০ ভোট পড়েছে। শনিবার মধ্যরাত থেকে বেশির ভাগ এলাকায় বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতংক সৃষ্টি করা হয়েছে। ফলে ভোটাররা ভয়ে বের হতে পারছেন না। অনেকে আসতে চাইলেও তাঁদের ধাওয়া দেওয়া হচ্ছে, মারধর করা হচ্ছে।