মধুমেলা উপলক্ষে সাগরদাঁড়ি সেজেছে বর্ণিল সাজে


প্রকাশিত : জানুয়ারি ২৪, ২০১৪ ||

আব্দুর রহমান, কেশবপুর: আধুনিক বাংলা সাহিত্যের রূপকার মহাকবি মাইকেল মদুসূদন দত্তের ১৯০তম জন্মদিন উপলক্ষে ২৫ জানুয়ারি সাগরদাঁড়িতে শুরু হচ্ছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সর্ববৃহৎ মধুমেলা’১৪। এ উপলক্ষে সাগরদাঁড়ি সেজেছে বর্ণিল সাজে। যশোরের কেশবপুর শহর থেকে ১৩ কিলোমিটার দক্ষিণে সাগড়দাঁড়ি গ্রামে মাইকেল মধূসুদন দত্তের স্মৃতিবিজড়িত জন্মস্থান। প্রতিবছর সরকারিভাবে মহাকবির জন্মদিন পালন করা হয়। সপ্তাহব্যাপী এ মেলা ২৫-৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে।
মধুকবি যে জমিদার বাড়িতে জন্মেছিলেন সে বাড়ির দক্ষিণপাশে মাইকেল মধুসূদন ইনস্টিটিউট মাঠে একটি স্থায়ী মধুমঞ্চ তৈরি হয়েছে। মেলা উপলক্ষে এ মঞ্চে প্রতিদিন মধুকবির সৃষ্টি ও জীবনীর উপর সমসাময়িক আলোকিত ব্যক্তিদের জ্ঞানগর্ভ আলোচনা, দেশবরেণ্য শিল্পীদের আগমণে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিবেশনা, নাটক, খোলামঞ্চে যাত্রাপালা পরিবেশনের পাশাপাশি সাগরদাঁড়ী বাজারজুড়ে মেলায় থাকবে বাঙালি সংস্কৃতির চিরচেনারূপ। মধুকবির জন্মদিনে প্রতিবছর লাখো মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয় কপোতাক্ষপাড়ের এই নিভৃতপল্লী সাগড়দাঁড়ি। সার্কাস, যাদু, মৃত্যুকুপে মটর সাইকেল চালানো, নাগরদোলা, স্টলে স্টলে হস্ত ও কুটিরশিল্পের বিভিন্ন পসরা, এলাকার পুরস্কারপ্রাপ্ত কৃষকদের পণ্যে সমৃদ্ধ কৃষিমেলাসহ বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে সাগরদাঁড়ির মিনি চিড়িয়াখানায় বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আনা বিভিন্ন প্রজাতির সাপ, বাঘ, ভাল্লুক, হাতি, জেব্রা, বনমোরগ, বানর, শিম্পাঞ্জি, বিলেতি ইঁদুর, কুমিরসহ প্রায় ২০০ প্রজাতির পশুপাখি থাকবে এবারের মেলায়। চিড়িয়াখানার মালিক আনিছুর রহমান জানান, ২৫-৩১ জানুয়ারি’১৪ সপ্তাহব্যাপী অনুষ্ঠিত মেলার মধুভক্তদের আনন্দ আরো বাড়িয়ে দিতে এবার চিড়িয়াখানায় প্রায় ২শ প্রজাতির বিভিন্ন পশুপাখি আনা হয়েছে।
কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, মধুমেলার উদ্বোধন করবেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, এমপি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রীর সাথে আরও উপস্থিত থাকবেন, যশোর সদরের এমপি কাজী নাবিল আহমেদ, অভয়নগর-বাঘারপাড়ার এমপি রনজিৎ কুমার রায়, মণিরামপুরের এমপি স্বপন ভট্টাচার্য, যশোর জেলা প্রশাসক মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র, জেলা আওয়ামী লীগ’র সভাপতি আলী রেজা রাজু, সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারসহ প্রমুখ।
মেলা উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু সায়েদ মো. মনজুর আলম জানান, ৭দিনব্যাপী মধুমেলার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেশবরেণ্য আলোচক, কবি, শিল্পী, সাহিত্যিক ও অন্যান্য অতিথিদের আমন্ত্রণ নিশ্চিত করা হয়েছে। তাছাড়া সুষ্ঠুভাবে মেলা পরিচালনার জন্য ইতোমধ্যে যা যা করনীয় তা সবই সম্পন্ন হয়েছে।
কেশবপুর থানার অফিসার-ইন-চার্জ সৈয়দ লুৎফর রহমান জানান, মধুমেলায় আইনশৃংখলা রক্ষায় সাগরদাঁড়িতে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মেলার ৭দিন বিজিবি, র্যাব-পুলিশের টহলের পাশাপাশি একটি অস্থায়ী পুলিশক্যাম্প স্থাপন করা হবে।