খুলনায় বইমেলা উদ্বোধনকালে মৎস্য প্রতিমন্ত্রী: লেখলির মাধ্যমে একুশের চেতনা সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৪ ||

পত্রদূত ডেস্ক: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেন, যে জাতি মাতৃভাষার জন্য নিজের জীবন দিতে পারে, সে জাতি কখনও পিছিয়ে থাকতে পারে না। এ জাতির একদিন উন্নতি হবেই। একুশের চেতনাকে ধারণ করে বাংলাভাষার অনুশীলন নিশ্চিত করতে হবে।
প্রতিমন্ত্রী বৃহস্পতিবার বিকেলে খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বয়রাস্থ বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার প্রাঙ্গণে ২৩ দিনব্যাপী ‘একুশে বইমেলা-২০১৪’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন। তিনি বলেন, লেখলির মাধ্যমে বাঙালি চেতনাকে সবাইর মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। জাতির মনন ও চিন্তার বিকাশ ঘটিয়ে লেখক ও প্রকাশকদের এগিয়ে আসতে হবে। নতুন প্রজন্মকে সঠিক পথ নিদের্শনা দিতে এবং সংস্কৃতিমনা করে তুলতে আপনাদের গুরুদায়িত্ব পালন করতে হবে। এ জন্য সরকারের পাশাপাশি বাংলা একাডেমিসহ সমাজ গঠনমূলক প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসতে হবে।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আগামী প্রজন্মকে বই পড়তে উৎস দিতে হবে। বই আমাদের জ্ঞান সমৃদ্ধ করে। অতীতকে জানতে হলে আমাদেরকে বই পড়তে হবে। বইপড়া ও বইকেনার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারলে জাতি মননে আরও সমৃদ্ধশালী হবে। তিনি দেশের সকল প্রতিষ্ঠানে বাংলাভাষা ব্যবহার করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। এতে সভাপতিত্ব করেন খুলনা জেলা প্রশাসক আনিস মাহমুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন খুলনা পুলিশ সুপার গোলাম রউফ খান পিপিএম (বার), ভাষাসৈনিক সমীর আহমেদ, রবি আজিয়াটা লিমিটেডের রিজিওনাল ম্যানেজার তারিকুল ইসলাম এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুল কাইয়ুম। স্বাগত বক্তৃতা করেন বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থগার’র সিনিয়র লাইব্রেরিয়ান ও একুশে বই মেলার-১৪ এর সদস্য সচিব ড. আহছান উল্যাহ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির কেন্দ্রীয় পরিচালক মোঃ আলমগীর। এর আগে প্রতিমন্ত্রী ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন এবং বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন। ‘বই পড়–ন জীবন গড়–ন’ এ শ্লে¬াগান নিয়ে বই মেলায় প্রকাশনা সংস্থা, বিভিন্ন সাহিত্য সংস্থা, সরকারি, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও লাইব্রেরিসহ ৬৮টি স্টল স্থান পেয়েছে। ২৩ দিনব্যাপী বইমেলা প্রতিদিন বিকেল চারটা হতে রাত ন’টায় পর্যন্ত সকলের জন্য খোলা থাকবে। বিকেলে প্রবন্ধ ও কবিতা পাঠ, আলোচনা, নতুন লেখকদের বইয়ের মোড়ক উন্মোচন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকবে। ৪০টি সাহিত্য-সাংস্কৃতিক সংগঠন এসব অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবে। রাতে প্রতিমন্ত্রী সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগদান করেন।