কপিলমুনিতে দেদারছে আসছে ভারতীয় পোশাক, চলছে বিক্রি!


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৩, ২০১৭ ||

কপিলমুনি (খুলনা) প্রতিনিধি: কপিলমুনি বাজারে ভারতীয় পোশাক সহ বিভিন্ন পণ্যে সয়লাব হয়ে গেছে। দীর্ঘদিন যাবৎ খোলামেলাভাবে দেদারছে ভারতীয় পণ্য বিকিকিনি হলেও আইন প্রয়োগ কারী সংস্থা কুম্ভকর্ণের ন্যায় পড়ে আছে। বিভিন্ন রংবাহারী মনোলোভা ভারতীয় পোশাকের দিকে ক্রেতা সাধারণ ঝুঁকে পড়ায় দেশীয় পোশাক বিক্রিতে ভাটা পড়েছে। ফলে স্থানীয় বস্ত্র ব্যবসায়ীদের ব্যবসা লাটে উঠতে বসেছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে একদিকে যেমন দেশীয় বস্ত্র ও পোশাক শিল্পের বিপর্যয় ঘটবে অন্যদিকে ব্যবসায়ীরা চরম লোকসানের মুখে পড়বে। কপিলমুনি বাজারে অবাধে ভারতীয় পোশাক সহ বিভিন্ন ভোগ্য পন্যের আমদানী ও অবাধ ক্রয় বিক্রয়ের বিষয়টি কপিলমুনির বস্ত্র ব্যবসায়ীরা স্থানীয় পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এস, আই বরকত উল্লাহকে অবগত করলে এ বিষয়টি দেখবেন বলে তিনি জানান। কিন্তু দীর্ঘ দিন হলেও এ ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি ।
একাধিক সূত্র জানায়, কপিলমুনির পার্শ্ববর্তী সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়ে প্রায় একডজন কালোবাজারী সিন্ডিকেট ভারত থেকে তৈরী পোশাক, বস্ত্রসহ বিভিন্ন ভোগ্য পন্য, কীটনাশক, মদ, গাঁজা, ফেন্সিডিল সহ রকমারী পণ্যের বড় বড় চালান দক্ষিনাঞ্চলের নিরাপদ রুট কপিলমুনি বাজারে নিয়ে আসে। আর এখান থেকে কপিলমুনির আশে পাশের এলাকায় এসব পণ্য সরবরাহ করা হয়। এবিষয়ে সংবাদকর্মীদের সাথে চোরাকারবারী ও প্রশাসনের ভয়ে মুখ খুলতে চান না কোন ব্যবসায়ীই। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ব্যবসায়ী বলেন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কিছু অসাধু সদস্যদের মাসোয়ারায় তুষ্ট করে ভারতীয় পণ্য চোরাকারবারীরা যেন মেতে উঠেছে। যেভাবে কপিলমুনি বাজারে দেদারছে ভারতীয় তৈরী পোশাক ও বস্ত্র বিক্রি হচ্ছে দেখলে মনে হয়না কপিলমুনি বাংলাদেশের একটি বাজার।
সচেতনদেন বলছেন, দেশের বস্ত্র ও পোশাক শিল্প ও স্থানীয় বস্ত্র ব্যবসায়ীদের ধ্বস ঠেকাতে কপিলমুনি বাজারের অসংখ্য দোকান ও গুদাম থেকে ভারতীয় পোশাক জব্দ সহ চোরাকারবারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইননানুগ ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। এ বিষয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সহ পুলিশ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তারা।