ভালোবাসা দিবসে সুন্দরবনকে ভালোবাসুন


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৭ ||

মননজয় মন্ডল
আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস ও একই সাথে সুন্দরবন দিবস। এই দিনে এক অপরের ভালোবাসার মানুষকে ফুল, চিঠি, কার্ড ও বিভিন্ন উপহার দিয়ে ভালোবাসা জানিয়ে দিবসটি উৎযাপন করে। ভালোবাসা প্রতিবছর ফেব্রুয়ারী মাসের ১৪ তারিখে বিশ্বব্যাপী মহা আড়ম্বড়ে উৎযাপিত হয় বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে পালিত হয় সুন্দরবন দিবস। উল্লেখ আছে ২৬৯ সালে ইতালির রোম নগরীতে সেন্ট ভ্যালেইটাইন’স নামে একজন খৃষ্টান চিকিৎসক ছিলেন। ধর্ম প্রচারের-অভিযোগে তৎকালীন রোমান স¤্রাট দ্বিতীয় ক্রাডিয়াস তাঁকে বন্দী করেন। কেননা তখন রোমান রাজ্যে খৃষ্টান ধর্ম প্রচার নিষিদ্ধ ছিল। বন্দী অবস্থায় তিনি জনৈক কারারক্ষীর দৃষ্টহীন মেয়েকে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ্য করে তোলেন। এতে সেন্ট ভ্যালেইটাইনের জনপিয়তার প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজা তাকে মৃত্যুদন্ড দেন। সেই দিন ১৪ই ফেব্রুয়ারী ছিল। অতঃপর ৪৯৬ সালে পোপ সেন্ট জেলাসিউ ও ১ম জুলিয়াস ভ্যালেইটাইন’স স্মরণে ১৪ই ফেব্রুয়ারীরিকে ভ্যালেন্টাইন’ দিবস ঘোষণা করেন। এরপর থেকেই শুরু বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। এদিকে ২০০১ সালে প্রথম পালিত হয় সুন্দরবন দিবস। উল্লেখ আছে ২০০১ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী রুপান্তর ও পরশ এর উদ্যোগে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম জাতীয় সুন্দরবন সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সম্মে¥লনে আরো প্রায় ৭০টি পরিবেশবাদী সংগঠন অংশগ্রহন করে। উক্ত সুন্দরবন সম্মেলনের মধ্য দিয়ে প্রতিবছর ১৪ ফেব্রুয়ারীকে সুন্দরবন দিবস ঘোষনা করা হয়। আর তার পর থেকেই প্রতিবছর সমগ্র বাংলাদেশে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে সুন্দরবন দিবস উৎযাপিত হয়।
পৃথিবীর একক বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট সুন্দরবন। বিশ্ব ঐতিহ্যখ্যাত নয়নাভিরাম এ প্রকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভুমি খ্যাত সুন্দরবন আজ সময়ের পরিক্রমায় হুমকির মুখে পড়েছে। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রায় ৭ লক্ষাধিক পরিবার সরাসরি এই সুন্দরবনের উপর নির্ভরশীল। এছাড়াও প্রায় ২ কোটি মানুষের অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থা ও জীবন-জীবিকা কমবেশী নির্ভরশীল। সুন্দরবনের সাথে নিবিড়ভাবে জড়িয়ে আছে উপকুলীয় এ অঞ্চলের কৃষি পরিবেশ ও প্রতিবেশ। সুন্দরবন নির্ভর পেশাজীবি জনগোষ্ঠীর জীবন জীবিকার মান-উন্নয়ন ও সুন্দরবনের স্থায়িত্বশীল ব্যবস্থাপনার জন্য বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য সুরক্ষার জন্য সমাজ সচেতন সকলকে সুন্দরবন দিবসের গুরুত্ব অনুধাবন করতে হবে।
রামসার ঘোষিত এই সুন্দরবনে ৫ হাজার প্রজাতির সম্পুরক উদ্ভদি, ১৯৮ প্রজাতির উভচর প্রাণী, ১২৪ প্রজাতির সরীসৃপ, ৫৭৯ প্রজাতির পাখি, ১২৫ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী ও ৩০ প্রজাতির চিংড়ী মাছ রয়েছে। নানা বৈচত্র্যময় সুন্দরবনের পরিবেশ ও প্রতিবেশ রক্ষায় আমাদের উদ্যোগ নিতে হবে। সুন্দরবনের বনজ, মৎস্য ও পর্যটন খাত থেকে প্রতিবছর প্রচুর পরিমানে রাজস্ব আয় হয়ে থাকে। প্রতিবছর দেশী বিদেশী বহু পর্যটক পাড়ি জমায় সুন্দরবনে, প্রকৃতির নির্মল পরিবেশে থেকে হৃদয়কে খানিকটা হালকা করার জন্য। বাংলাদেশের সুন্দরবন কেন্দ্রীক পর্যটন শিল্পের প্রসারের মাধ্যমে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা লাভ করা সম্ভব।

সুন্দরবনের মানকে বিশ্বের দরবারে সমুজ্জ্বল রাখতে এবং সুন্দরবন সুরক্ষায় নানা ধরনের পরিবেশ বান্ধব পরিকল্পনা ও উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে হবে। সুন্দরবন দিবসের মাধ্যমে সকলকে সুন্দরবন সুরক্ষায় সচেতন করতে হবে। র‌্যালী, আলোচনা, সেমিনার, মতবিনিময়, গোলটেবিল বৈঠক, সংবাদ সম্মেলন, মানববন্ধন, স্বারকলিপি প্রদান, পোষ্টার ও লিফলেট বিতরণ এবং ডকুমেন্টরী প্রদর্শণীর মাধ্যমে সুন্দরবন সুরক্ষায় জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা যেতে পারে। বিশেষ করে নতুন প্রজন্ম ও স্কুল কলেজ শিক্ষার্থীদের মধ্যে সুন্দরবন বিষয়ক রচনা, চিত্রাংকন, গল্প ও কবিতা প্রতিযোগিতা আয়োজনের মধ্য দিয়ে তাদের মননশীল চিন্তার বহি:প্রকাশ ঘটানো যেতে পারে।
প্রকৃতির অফুরন্ত প্রাণ সম্পদে ভরা বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনকে সুরক্ষার জন্য সরকারী বেসরকারী সকল মহলকে এগিয়ে আসতে হবে। চিন্তা, চেতনা ও দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনকে সুরক্ষা করতে হবে। তাহলে বন্যা, ঝড়, জলোচ্ছাস ও নদী ভাঙনের মত প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তনের হাত থেকে প্রাণ ও বৈচিত্র্য সুরক্ষা পাবে। তাই শুধু বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে নয়, শুধু সুন্দরবন দিবসে নয় আমাদের বৈচিত্র্যেভরা প্রিয় সুন্দরবনকে ভালোবাসতে হবে সতত!
লেখক-মননজয় মন্ডল।