বাধা দেওয়ায় হামলা, সানাউলের সংবাদ সম্মেলন জোড়দিয়ায় কবরস্থান রাস্তা বানাতে চায় সালেক


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৭ ||

নিস্ব প্রতিনিধি: সবার যাতায়াতের জন্য রাস্তা রয়েছে। তা সত্ত্বেও প্রতিপক্ষ আবদুস সালেক আমাদের পারিবারিক কবরস্থানের ওপর দিয়ে যাতায়াতের রাস্তা বানাতে চায়। এতে বাধা দেওয়ায় সালেক গং শেখ সানাউল হুদা পরিবারের ওপর হামলা করে কয়েকজনকে আহত করে। এ নিয়ে মামলাও হয়েছে। অথচ তারা আমাদের ওপর নানা দোষ চাপিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে জানিয়েছেন সদর উপজেলার জোড়দিয়া শেখপাড়া গ্রামের শেখ আবুল হোসেনের ছেলে শেখ সানাউল হুদা।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তার ভাবী  আশুরা বেগম ও সাথী আক্তার উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন সালেক গং তাদের শরিক। সকল শরিকদের জন্য যাতায়াতের একটি সাজার রাস্তা রয়েছে। কিন্তু সেই সাজার রাস্তা ব্যবহার না করে সালেকরা সানাউল হুদাদের পারবিারিক কবরস্থান দিয়ে চলাচল করতে চায়। এ নিয়ে বিরোধের জেরে গত ৯ ফেব্রুয়ারি আবদুল জব্বার, আবদুস সালেক, লিপিয়ারা খাতুন, শাহানারা বেগম, আবদুল আলিম তাদের বসত বাড়িতে হামলা করে। তারা  শেখ আবুল হোসেন, আশুরা থাতুন, সাথী আক্তারকে মারপিট করে টাকা কানের দুল ও সোনার চেইন ছিনিয়ে নেয় এবং তাদের শ্লীলতা হানি ঘটায়। আহত অবস্থায় তাদেরকে সাতক্ষীরা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ নিয়ে সাতক্ষীরা থানায় একটি মামলা হয়েছে। এই  ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য গত ১৪ ফেব্রুয়ারি আবদুস সালেক সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে মিথ্যাচার করেছেন। যাতায়াতের রাস্তা বন্ধের যে অভিযোগ করা হয়েছে তা মিথ্যা।
সানাউল হুদা আরও বলেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম আমাদের আহবানে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেছেন, সকলের যাতায়াতের জন্য ৬ হাত রাস্তা রয়েছে। কবরস্থানের ওপর দিয়ে যাতায়াতের রাস্তা করা যাবে না। সবের পরও সালেক ও তাদের লোকজন আমাদের নানাভাবে হয়রানি করার চেষ্টা করছে। তারা তাদের হুমকি ধামকি দিচ্ছে। শুধু তাই নয়, শেখ শামিমুল হুদার ছেলে জেএসসিতে এ প্লাস পাওয়া মেধাবী নবম শ্রেণির ছাত্র শেখ তম্ময় এর উজ্জ্বল ভবিষ্যত নষ্ট করার উদ্দেশ্য আব্দুল জব্বার নানা ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে। এছাড়া বিজিবি’র সদস্য শেখ আব্দুল মালেকের চাকরির ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে আব্দুল জব্বার ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে মামলার আসামি করেছে। সালেক গংয়ের মিথ্যাচার ও হয়রানি থেকে রক্ষা পেতে সাতক্ষীরার পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে  সানাউল হুদা ও তার পরিবার।