ডুমুরিয়ায় কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার: আটক ৩, থানায় হত্যা মামলা


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৭ ||

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি: ডুমুরিয়ায় মির্জাপুর এলাকা থেকে সুদর্শন রায় (২৩) নামের এক কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ গত মঙ্গলবার সকালে দক্ষিন মির্জাপুর নদীর পাড় থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের মামা স্কুল শিক্ষক দিনবন্ধু মন্ডল বাদী হয়ে একই পরিবারের ৪জনকে আসামী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ এ মামলার আসামী কলেজ ছাত্রী লাভলী বিশ্বাস, তার একমাত্র ভাই কংকন বিশ্বাস ও মাতা রুপদী বিশ্বাসকে আটক করে জেল-হাজতে প্রেরন করেছে।নিহতের স্বজন ও এজাহার সুত্রে জানাজায় বটিয়াঘাটা উপজেলার বুনারাবাদ গ্রামের শুকুমার রায়ের এক মাত্র পুত্র সুদর্শন রায় ছোট বেলা থেকে ডুমুরিয়া উপজেলার বড়ডাঙ্গা এলাকায় তার মামা দিনবন্ধু মন্ডলের বাড়ীতে থেকে লেখাপড়া করে আসছে।সে বর্তমান সুন্দরবন সরকারী কলেজের অর্থনীতি বিভাগে অনার্স তৃতীয় বর্ষের একজন মেধাবী ছাত্র। মামার বাড়ীতে থেকে লেখাপড়ার পাসাপাসি টিউশনি পেষার সাথে জড়িত ছিলেন তিনি। তারই জের ধরে মির্জাপুর এলাকার বিপুল বিশ্বাসের এক মাত্র মেয়ে ডুমুরিয়া মহাবিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষের ছাত্রী লাভলী বিশ্বাসের সাথে প্রায় এক বছর আগে থেকে ঘনিষ্ট প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সে সুবাদে সুদর্শন মাঝে মধ্যে লাভলীর বাড়ি যাওয়া আসা করতো। বিষয়টি মেনে নিতে না পারায় ঘটনার রাতে লাভলীর সহেতায় তার পরিবারের সদস্যরা সুদর্শনকে ডেকে নিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা শেষে লাশটি দক্ষিন মির্জাপুর নদীর পাড়ে ফেলে রেখে যায়।পরে স্থানীয়রা লাশটি দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করে।এ দিকে সুদর্শনের মৃত্যুটি হত্যা নয়,আত্মহত্যা দাবী করে লাভলী ও তার পরিবার জানান লাভলী সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল ঠিকই। ঘটনার রাতে সুদর্শন লাভলীর সাথে দেখা করতে গভীর রাতে তাদের বাগানে অবস্থান নেয়। এর পর মোবাইলে লাভলীকে কাছে ডেকে নেয়। বিষয়টি লাভলী সহজে মেনে নিতে না পেরে তাকে বকাবকি করে। এ সময় সুদর্শন অভিমানে লাভলীর ওড়না কেড়ে নিয়ে গলায় পেচিয়ে পাশে থাকা একটি গাছে আত্মহত্যা করে।লাভলী জানান তাকে বাচাঁনো জন্য বাড়ী থেকে একটি কাচি নিয়ে ওড়নাটি কেটে দিলে সে নিচে এসে পড়ে।পরে দেখি তার আর নড়া চড়া নেই।তখন মাকে বিষয়টি জানানোর পর হত্যা মামলার ভয়ে লাশটি নৌকায় তুলে ঘটনা স্থলে ফেলে আসা হয়।সুদর্শনকে হত্যা নয় সে নিজেই আত্মহত্যা করেছে।ঘটনা প্রসংগে ওসি সুভাষ বিশ্বাস জানান লাশ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।ময়না তদন্ত রিপোট হাতে পেলে মৃত্যুর আসল বেরিয়ে আসবে।