যুগিখালিতে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় বন্ধুকে সাথে নিয়ে শাশুড়িকে শ্বাসরোধ করে হত্যা


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৭ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: পাওনা দেড় লাখ টাকা ফেরত চাওয়ায় জামাই তার বন্ধুকে সাথে নিয়ে বৃদ্ধা শাশুড়িকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। জেলার কলারোয়া উপজেলার যুগিখালী গ্রামের মৃত শামছুর রহমানের স্ত্রী সুফিয়া খাতুন (৫৩) হত্যা মামলায় আটক জামাই গোলাম মোস্তফা রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদকালে শুক্রবার পুলিশের কাছে এই স্বীকারোক্তি দেয়। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পুলিশ গোলাম মোস্তফার বন্ধু বাপ্পা ঘোষকে গ্রেপ্তার করেছে।
আসামী গোলাম মোস্তফা (৩৫) কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়া সানাপাড়া গ্রামের মৃত মশিয়ার সানার ছেলে ও তার বন্ধু বাপ্পা ঘোষ (২৪) একই গ্রামের ঘোষ পাড়ার মৃত মিলন ঘোষের ছেলে।
কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক শেখ জানান, গত ১৭ জানুয়ারী সকালে কলারোয়া উপজেলার যুগিখালী গ্রামের মৃত শামছুর রহমানের স্ত্রী সুফিয়া খাতুনের লাশ তার ঘরের খাটের উপর থেকে উদ্ধার করা হয়। তার গলায় আঘাতের চিহ্ন ছিল। ধারণা করা হয় তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। এঘটনায় নিহতের ভাই যশোর কোতয়ালী থানার তেতুলীয়া গ্রামের মৃত রোস্তম আলীর ছেলে আব্দুল খালেক বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী করে কলারোয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই সিরাজুল ইসলাম এই হত্যাকান্ডের সঙ্গে নিহতের জামাই গোলাম মোস্তফার সম্পৃক্তার প্রমাণ পেয়ে কয়েকদিন আগে তাকে গ্রেপ্তার করেন। আদালত থেকে দু’দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদকালে সে তার বন্ধু বাপ্পার সহযোগিতায় শাশুড়িকে শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনা স্বীকার করে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী শুক্রবার বাপ্পা ঘোষকে গ্রেপ্তার করা হয়।
ওসি এমদাদুল হক শেখ আরো বলেন, থানায় জিজ্ঞাসাবাদকালে গোলাম মোস্তফা জানায়, শাশুড়ির কাছ থেকে দেড় লাখ টাকা হাওলাত নিয়ে সে তার বন্ধু বাপ্পা ঘোষকে দেয়। তারা দু’জনই নিয়মিত ইয়াবা ট্যাবলেট সেবন করে। বেশ কিছুদিন ধরে শাশুড়ি টাকা ফেরত দেয়ার জন্য তাকে চাপ দিচ্ছিল। কিন্তু বাপ্পা টাকা না দেয়ায় সে ফেরত দিতে পারছিল না। গত ১৬ জানুয়ারী সন্ধ্যায় তারা দুইজন ইয়াবা সেবন করে উপজেলার যুগিখালী গ্রামে শাশুড়ি সুফিয়া খাতুনের বাড়িতে যায়। বাড়িতে গিয়ে দেখে শাশুড়ি ঘুমিয়ে পড়েছেন। এসময় বাপ্পার পরামর্শে তারা সুফিয়া খাতুনকে হত্যা করার পরিকল্পনা করে। সে অনুযায়ী মোস্তাফা শাশুড়ির দুই পা চেপে ধরলে বাপ্পা গলা চেপে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করে। এরপর দু’জনই ঘর থেকে বেরিয়ে যার যার বাড়িতে চলে যায়। এঘটনায় আটক গোলাম মোস্তফা শুক্রবার বিকালে সাতক্ষীরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে তিনি জানান।