তালায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জমিতে জবর দখল পূর্বক মৎস্য চাষের অভিযোগ: প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৭ ||

জালালপুর (তালা) প্রতিনিধি: তালা উপজেলার খেশরার পল্লীতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জমিতে প্রভাবশালী মহল কর্তৃক জোরপূর্বক মৎস্য চাষের অভিযোগ উঠেছে। বিপাকে পড়েছে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়। ভুক্তভোগী মহল এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এলাকাবাসির অভিযোগে জানা যায়, তালা উপজেলার খেশরা গ্রাম এবং পাইকগাছা উপজেলার গদাইপুর ইউনিয়নের মাঝ দিয়ে বয়ে গেছে কপোতাক্ষ নদ। এই নদের তীরে খেশরা গ্রামের অধিকাংশ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বসবাস। কিন্তু অত্র এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোক দীর্ঘ ১২ বছর ধরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ২২০ বিঘা জমিতে জবর দখল করে চিংড়ি চাষ করে আসছে বলে জানা গেছে। এলাকার দেবব্রত মল্লিক, অসীম মল্লিক, বাবুরাম সরদার, কালিপদ মল্লিক, জগদীশ মল্লিক, সমীর দাশ সহ অনেকেই অভিযোগ করেন খেশরা মৌজায় তাদের ১৬৮৬, ১৭০৭, ১৪৮৮, ১৮৮৯, ১৮৭১ ১৪৬৯, ১৪৮৬, ১৪৭৩ এবং ১৪৪৬ নং দাগ সহ আর কয়েকটি দাগে আনুমানিক ২২০ বিঘা জমি আছে। কিন্তু অত্র এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোক দীর্ঘ ১২বছর ধরে উক্ত জমি জবরদখল করে চিংড়ি চাষ করে আসছে। সুত্রে জানা গেছে শাহজাতপুর গ্রামের আ. সাত্তার মাষ্টার, ছবুর সরদার, মহাসীন কাগুজী, বজলু রহমান মোড়ল সহ আগড়ঘাটা গ্রামের কতিপয় ব্যক্তি হিন্দু সম্প্রদায়ের এই জমি কোন ডিড (চুক্তি) ও হারি ছাড়াই জবর দখল করে নিয়ে মৎস্য চাষ করে আসছে। অভিযোগকারী ব্যক্তিরা হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক হওয়ার প্রেক্ষিতে জমির হারি চাইতে গেলে জবর দখল কারীরা বিভিন্ন রকম হুমকি ধামকি দিতে থাকে। এ বিষয়ে আ. সাত্তার মাষ্টারের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। এমতাবস্থায় সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা তাদের নায্য জমির অধিকার ফেরত পাওয়ার জন্য প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।