পাইকগাছায় সাংবাদিকের নামে হয়রানীমূলক মামলার অভিযোগ


প্রকাশিত : এপ্রিল ১৮, ২০১৭ ||

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি: পাইকগাছায় সাংবাদিকের ভাইকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে। গত ৯ এপ্রিল সাংবাদিক পরিবারের পক্ষ থেকে পাপিয়া বেগম বাদী হয়ে ৫জনকে আসামী করে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা করার ৪দিন পর প্রতিপক্ষদের পক্ষ থেকে রেবেকা বেগম বাদী হয়ে ১৩ এপ্রিল একই আদালতে সাংবাদিক আবুল কালাম আজাদ সহ ৬জনকে আসামী করে হয়রানীমূলক পাল্টা মামলা করেছেন।
প্রাপ্ত অভিযোগ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার নগরশ্রীরামপুর গ্রামের মৃত আনসার আলী হাজরার ছেলে ও সাংবাদিক আবুল কালাম আজাদের ভাই আসলাম উদ্দীন হাজরা বাচ্চুর সাথে উত্তর সলুয়া গ্রামের প্রতিবেশী জিন্নাত হাজরা গংদের সাথে জায়গা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছে। বিরোধকে কেন্দ্র করে ঘটনার দিন গত ৭ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৭টার সময় আসলাম তার বসত ঘরের সামসেট প্লাস্টার করার জন্য বাঁশ পুঁতে ভারা তৈরীর কাজ করছিল। এ সময় প্রতিপক্ষ জিন্নাত হাজরা গংদের লোকজন আসলামের উপর হামলা চালিয়ে কুপিয়ে জখম করে। পরে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় আসলামকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ৯ এপ্রিল আসলামের স্ত্রী পাপিয়া বেগম বাদী হয়ে মৃত নজরুল হাজরার ছেলে সবুজ হাজরা সহ ৫জনকে আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে এজাহার হিসেবে নথিভূক্ত করার জন্য ওসি, পাইকগাছাকে নির্দেশ দেন। এর ৪ দিন পর প্রতিপক্ষ জিন্নাত আলী হাজরার স্ত্রী রেবেকা বেগম বাদী হয়ে আসলাম ও সাংবাদিক আজাদ সহ ৬জনকে আসামী করে ১৩ এপ্রিল হয়রানীমূলক পাল্টা মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করে দেখার জন্য আদালতের বিজ্ঞ বিচারক ওসি, পাইকগাছাকে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে সাংবাদিক আজাদ জানান, প্রতিপক্ষরা আমার ভাইকে কুপিয়ে জখম করে পাল্টা আমাকে আসামী করে হয়রানীমূলক মামলা করেছে। প্রতিপক্ষদের আলমগীর হাজরাকে মারপিটের কথিত যে অভিযোগ এনেছেন তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, আলমগীর অনেক আগে থেকেই সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ছিলেন।