অবৈধভাবে ঘের দখলের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে জেলা কৃষকলীগের প্রতিবাদ


প্রকাশিত : মে ১১, ২০১৭ ||

জেলা কৃষকলীগের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধু ২০০১ সাল থেকে নগরঘাটা ইউনিয়নের বিল নটাডাঙ্গা মৌজার ৩০০ বিঘা জমিতে ঘের করে আসছেন। ইতোমধ্যে জামাত নেতা আব্দুল হান্নান এবং বিএনপি কর্মী মমিন গাজী পৃথক ২ডিডে ৫০ বিঘা জমি ঘেরের বিভিন্ন স্থান থেকে ডিড গ্রহণ করেন। হান্নান ও মমিন গাজী ২০০১ সাল থেকে বিশ্বজিৎ সাধু বেড়িবাধ ও শান্তিপূর্ণ ঘেরের মধ্যে যত্রতত্র বেড়িবাধার চেষ্টা করে আসছে। পাটকেলঘাটা থানাকে অবহিত করেও কোন সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। মনে হচ্ছে পাটকেলঘাটা থানা পিছনে থেকে তাদেরকে আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছে। জামাত ও বিএনপি ২৮শে ফেব্রুয়ারি ২০১৩ সালের পর সাতক্ষীরা কে অস্থিতিশীল করার আসামীরা দক্ষিণাঞ্চলে আবারও আখড়া তৈরি করার চেষ্টা করছে এবং আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে যে কোন তান্ডব ঘটাতে পারে। শান্তি বিনষ্ট কারী আব্দুল হান্নান গাজী ও মমিন গাজী গংদের শান্তিপূর্র্ণ অঞ্চলকে অশান্তির সৃষ্টির প্রয়াসকে আইনের আমলে এনে শাস্তির দাবিতে জেলা প্রশাসকসহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিবৃতি প্রদান করেছেন সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর হোসেন, এড. নওশের আলী, উপাধ্যক্ষ আতিয়ার রহমান, নুর আহমেদ  লাল্টু, প্রভাষক হেদায়তুল ইসলাম, রেজাউল ইসলাম, মিজানুর রহমান, প্রদ্যুত কুমার ঘোষ, আতিয়ার রহমান, শেখ আফজাল হোসেনসহ অনেকে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
তালা কৃষকলীগের বিবৃতি:
বিল নটাডাঙ্গা মৌজায় জেলা কৃষকলীগের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধুর ২০০১ সাল থেকে ৩০০ বিঘা পতিত জমিতে বাধ দিয়ে মালিকদের নিকট থেকে হারি নিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে ঘেরের ব্যবসা করে আসছেন। ইতোমধ্যে আব্দুল হান্নান গাজী ও মমিন গাজী শান্তিপূর্ণভাবে ঘেরের মধ্যে ২ডিডে ৫০-৫৫ বিঘা জমি নিয়ে যত্রতত্র ইচ্ছাধীন বেড়িবাধার চেষ্টা করে এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করছে। বিষয়টি পাটকেলঘাটা থানাকে অবহিত করে কোন সুরাহ হয়নি। উক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন পূর্বক এলাকায় শান্তি রক্ষার জন্য জেলা প্রশাসক সহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি কামনা করে বিবৃতি প্রদান করেছেন মুক্তিযোদ্ধা মইনুল ইসলাম, শংকর দাশ, প্রভাষক আনিসুর রহমান, শেখ মতিয়ার রহমান, নজরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহিম, সত্যেন্দ্রনাথ ঘোষ সহ শেখ শাহাবাজ আলী, নাজমুল হাসান মিঠু, বিধান কুমার দাশ, আজগার আলী, গোলাম মোস্তফা, সালাউদ্দীন  ও বাবলুর রহমান প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পৌর কৃষকলীগের বিবৃতি:
জেলা কৃষকলীগের সভাপতি বিশ্বজিত সাধুর শান্তিপূর্ণ দখলীয় মৎস্য ঘেরে হঠাৎ করে জামাত শিবির ক্যাডার ও ইতোপূর্বে নাশকতার সৃষ্টিকারী সন্ত্রাসী সাতক্ষীরা পারকুখরালী গ্রামের আব্দুল হান্নান বিএনপি কর্মি মমিন গাজী গংদের হামলা ও ঘের দখলের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন পৌর কৃষকলীগের আহবায়ক সামছুজ্জামান জুয়েল, যুগ্ম আহবায়ক শাহ মো. আনারুল, সদস্য সচিব বাসুদেব সিংহসহ পৌর কৃৃষকলীগ নেতৃবৃন্দ ও সকল ওয়ার্ড কৃষকলীগের নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ দোষীদের চিহৃত করে অবিলম্বে বিচারের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি