সরকার ইসলাম শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী


প্রকাশিত : মে ১৩, ২০১৭ ||

এসএম শহীদুল ইসলাম: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেছেন, বর্তমান সরকার ইসলাম শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। এ সরকারের আমলে সকল ধর্মের মানুষ যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করছে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের রোল মডেল।

তিনি শুক্রবার দুপুরে সাতক্ষীরা ব্রহ্মরাজপুর এন বি বি কে আল-মদিনা দাখিল মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী ও স্থানীয় জনসাধারণের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, যারা ধর্মের নামে রাজনীতি করে তারা কোনো ধর্মীয় নিয়মনীতি মানেনি। বরং ধর্মের দোহাই দিয়ে তারা সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করেছে। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.) এর হিযরত পরবর্তী মদীনা সনদের কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, মদীনা সনদের ৪৭টি ধারার মধ্যে একটি ধারায় আছে কোনো ধর্মের মানুষ অন্য কোনো ধর্মের মানুষের উপর আঘাত করতে পারবে না। মদীনা সনদের ওই ধারার আলোকে আমাদের সংবিধানে সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার দেয়া হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে বদ্ধপরিকর। জঙ্গিবাদের আস্তানা এই বাংলায় থাকবে না। এখানে শুধু মুসলমান মুসলমান ভাই ভাই এ বললে হবে না। এখন আমরা হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই। এই দেশ হিন্দু মুসলিম সবার জন্য। তিনি জঙ্গিবাদ নির্মূলে শেখ হাসিনার সরকারের লক্ষ্য তুলে ধরে বলেন, সৌদি সরকার জঙ্গি নির্মূলে শেখ হাসিনার সরকারের ভূয়শী প্রশংসা করেছে। আগামি দু’এক দিনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৌদি বাদশার আমন্ত্রণে জঙ্গি নির্মূল ইস্যুতে বৈঠক করবেন।

সৌদি সরকারের দেয়া প্রায় সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকায় দেশে ৫৬০টি মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছেন। তাঁর নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করি। আওয়ামী লীগ সরকার কওমি মাদ্রাসাকে স্বীকৃতি দিয়েছে। ইসলাম হলো শান্তির ধর্ম। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ ইসলামের পরিপন্থি। সরকার প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ এবং একটি করে গবেষণা কেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করছে। একটি মহল ধর্মের নামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করে যাচ্ছে। এদের বিরুদ্ধে সর্তক থাকতে হবে। ধর্মকে ব্যবহার করে যারা জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসী তৎপরতা অথবা অসৎ কাজ চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।

তিনি আরও বলেন, সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর মসজিদ, মাদ্রাসা ও মন্দিরে ব্যাপকহারে অনুদান প্রদান করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিকসহ সকল ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী মাদ্রাসার উন্নয়নে একাডেমিক ভবন ও ডিজিটাল ল্যাবসহ অন্যান্য অবকাঠামো উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দেন।

মাদ্রাসা পরিচালনা পরিষদের সভাপতি শেখ আব্দুল আহাদের সভাপতিত্বে অন্যান্যর মধ্যে বক্তৃতা করেন ৯ নম্বর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নিলীপ কুমার মল্লিক, শিক্ষানুরাগী জ্যোতিষ স¤্রাট এসকে বোস, ব্রহ্মরাজপুর বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শেখ আব্দুস সালাম এবং মাদ্রাসার সুপার এবিএম হাফিজুর রহমান, শিক্ষার্থী ইয়াসমীন জাহান ইতি, মৌসুমী সুলতানা প্রমূখ। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মারুফ হাসান, ডিবি গার্লস হাইস্কুলের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছোবহান, প্রধান শিক্ষক এমাদুল ইসলাম দুলু, সহকারী শিক্ষক ও সাংবাদিক এসএম শহীদুল ইসলাম, ফিংড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রামপ্রসাদ মন্ডল বাবু, মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, ব্যবসায়ী নূর আহমেদ, শিক্ষক আব্দুস সামাদ, নূরুল ইসলাম, আতিয়ার রহমান, ইব্রাহীম খলিল, আব্দুর সবুর, আব্দুল গফুর সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সহকারী শিক্ষক মো. সাইফুল্লাহ। অনুষ্ঠান শেষে প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ তার শ্বশুরবাড়ি ব্রহ্মরাজপুরের বোসবাড়িতে একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দেন।