দুর্নীতি প্রতিরোধে জনসম্পৃক্ততা বাড়াবে হবে: দুদক কমিশনার


প্রকাশিত : মে ১৮, ২০১৭ ||

পত্রদূত ডেস্ক: দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর কমিশনার (তদন্ত) এএফএম আমিনুল ইসলাম বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে হবে। শৈশব থেকেই শিশুদের মনে দুর্নীতির কুফল এবং দুর্নীতিমুক্ত সমাজের সুফলের ধারনা দিতে পরিবার ও বিদ্যালয়কে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।
তিনি বুধবার দুপুরে খুলনা সার্কিট হাউজ সম্মেলন কক্ষে খুলনা ও বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ জেলা ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।
দুদক কমিশনার বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দুর্নীতিমুক্ত, সুখী ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়তে চেয়েছিলেন। তাঁর এই স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে দুদক জনগণকে সাথে নিয়ে নিরলস কাজ করে চলেছে। এ লক্ষ্যে বর্তমানে দুদককে ঢেলে সাজানো হয়েছে। কমিশনের কাজের মান বাড়াতে কর্মকর্তাদের দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া দুর্নীতির অনুসন্ধান বাড়াতে গোয়েন্দা সেল গঠনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, দুর্নীতিবাজরা কখনই জনগণের চেয়ে শক্তিশালী নয়। প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি কমিয়ে আনতে কর্তা ব্যক্তির সদিচ্ছাই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দুর্নীতিম্ক্তু বাংলাদেশ গড়তে দুর্নীতি প্রতিরোধ কার্যক্রমকে সামাজিক আন্দোলনে রূপ দিতে তিনি উপস্থিত সকলের প্রতি আহবান জানান।
এসময় দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যরা উপজেলা পর্যায়ে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য উপজেলা পরিষদে কমিটির জন্য একটি কক্ষের ব্যবস্থা করা, সারা দেশের সদস্যদের নিয়ে বার্ষিক সমাবেশ করা, ইউনিয়ন কমিটি কার্যকর করা, উপজেলা পর্যায়ে নিয়মিত গণশুনানীর আয়োজন করা, গণশুনানীতে সহযোগিতা করার জন্য উপজেলা প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদানসহ রাজনৈতিক ব্যক্তি ও দলগুলোতে দুর্নীতি প্রতিরোধ কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার(রাজস্ব) নিশ্চিšত কুমার পোদ্দার। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান, এডিশনাল ডিআইজি মো. হাবিবুর রহমান বিপিএম ও দুদক পরিচালক (প্রতিরোধ) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। স্বাগত বক্তৃতা করেন খুলনা দুদকের পরিচালক  ড. মো. আবুল হাসান।
পরে দুদক কমিশনার শ্রেষ্ঠ জেলা ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যদের মাঝে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে খুলনা ও বরিশাল বিভাগের মোট ৮০টি দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।