স্ত্রীর স্বীকৃতির দাবিতে তালার মাদরার সৌমিত্রের বাড়িতে এক তরুণীর অনশন


প্রকাশিত : মে ২৮, ২০১৭ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: স্ত্রীর স্বীকৃতি পাবার দাবিতে দিনভর অনশন করেছে এক নারী। তালা উপজেলার মাদরা গ্রামের পঙ্কজ রায়ের পুত্র সৌমিত্র রায়ের বাড়িতে এ অনশন পালন করে খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলা বান্দাগ্রামের ওই নারী। শনিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অনশন পালন করে তিনি। গ্রামবাসীর কাছে আশ্বাস পেয়ে অবশেষে অনশন ভঙ্গ করে পিতার বাড়ি ফিরে যায় ওই নারী। অনশনরত অবস্থায় ওই নারী জানায়, ৫ বছর আগে সাতক্ষীরা থেকে খুলনা যাবার পথে বাসের মধ্যে পরিচয় হয় সৌমিত্র রায়ের সাথে। এরপর মোবাইল ফোনে কথা বলার সুবাদে একে অপরের মন দেয়া নেয়া হয়। এক পর্যায়ে সৌমিত্র রায় ওই নারীকে সিঁদুর পরিয়ে স্ত্রী হিসেবে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। তিন বছর এভাবে চলে দৈহিক সম্পর্ক। ইতোমধ্যে খুলনা বিএল কলেজ থেকে মাস্টার্স পাশ করে সৌমিত্র রায় ওই নারীর টাকায় বিএড পাশ করে। কিন্তু শুদ্র বংশে জন্ম বলে ওই নারীকে পুত্রবধূ হিসেবে মেনে নিতে আপত্তি জানায় সৌমিত্রের পরিবার। অনশনরত নারী আরো জানায়, সৌমিত্রের সাথে তিনি খুলনা শহরে ঘরভাড়া নিয়ে স্বামী স্ত্রী হিসেবে তিন বছর ঘর সংসার করেছে। ইতোমধ্যে ওই নারীর গর্ভে সন্তান আসলে তা নষ্ট করে দেয় সৌমিত্র। ফলে তিনি এখন স্ত্রীর স্বীকৃতি পাবার দাবিতে অনশন করা ছাড়া কোনো উপায় পাচ্ছেন না বলে জানায়। এসময় মাদরা গ্রামের শতশত মানুষ সৌমিত্র রায়ের বাড়িতে ভীড় জমায়।
গ্রামবাসি জানায়, ইতোপূর্বে একই খেলা খেলে সৌমিত্র রায় আরো দুজন তরুনীর সর্বনাশ করেছে। প্রথমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে পরে দেহ ভোগ করে বিদায় দেয় সৌমিত্র রায়। এটা তার নেশায় পরিণত হয়েছে বলে জানায় গ্রামবাসি।
অনশনরত ওই নারী জানায় ইতোপূর্বে বিভিন্ন পূজা পার্বনেও সে সৌমিত্রের বাড়িতে এসেছে। রাত থেকেছে। সৌমিত্রও বান্দা গ্রামের ওই বাড়িতে গিয়েছে।
এব্যাপারে সৌমিত্রের পিতা পঙ্কজ রায় বলেন, অনশনরত ওই মেয়েটির জন্ম শুদ্রু বংশে। ছেলে সৌমিত্র বাড়ি নেই। ছেলে বাড়ি ফিরলে তার সাথে আলোচনা করে বিষয়টি মিমাংসা করার কথা বলেন পঙ্কজ। একই কথা বলেন সৌমিত্র রায়ের কাকা পঞ্জানন রায় ও সূর্যকান্ত রায়।