ভোমরা ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে ১৫আগস্ট উপলক্ষে ব্যাপক চাঁদাবাজির অভিযোগ


প্রকাশিত : আগস্ট ১৬, ২০১৭ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভোমরা ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি আব্দুল গফুরের বিরুদ্ধে ব্যাপক চাঁদাবাজির আভিযোগ উঠেছে। আ’লীগ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর অবস্থান নিলেও ভোমরা ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি আব্দুল গফুর সেই আদেশ কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রায় ২লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি করেছে। অবশ্য এ কাজে তাকে কারও কোন ভাগ দেওয়া লাগেনি। শাঁখরা বাজারের একাধিক দোকানদার সাংবাদিকদের জানায়, আমাদের এই বাজারে ছোট-বড় মিলে প্রায় ২০০ দোকান আছে। প্রত্যেক এর কাছ ২০০টাকা থেকে শুরু করে ১০০০টাকা পর্যন্ত আদায় করা হয়েছে। বাজারে একজন হলুদ ব্যাবসায়ীর কাছে চাঁদা চাইলে তিনি বলেন আমি এখন বেচাকেনা করিনি টাকাদেব কিভাবে তখন ওই নেতা তার কাছ থেকে হলুদ নিয়ে বলে তোর আর চাঁদা দেওয়া লাগবেনা আমাদের কালকে রান্না করার জন্য হলুদের প্রয়েজন আছে সেটা তোর কাছ থেকে নিলাম। এমনি ভাবে খুচর চাল বিক্রেতা ইয়ছিনের কাছে টাকা চাইলে সে বলে আমরা দিন অনা দিন খাওয়া লোক আমাদের কাছে চাঁদা চাইলে হয় বলে সে ১০০ টাকার একটা নোট দিতে গেলে ওই নেতা সেটা চেলে ফেলে দেয়।
এ ব্যাপারে ভোমরা ইউনিয়নে নাম প্রকাশ না করা শর্তে অনেকেই জানায়, আমাদের এখানে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জেলা পরিষদের একজন সদস্য ২০০ কেজি চাল, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাহেব দিয়েছে নগদ ৩০০০ টাকা এবং একজন সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সহিদুল ইসলাম দিয়েছে ৩০০০ টাকা। কারন যাতে এই ইউনিয়নে কোনরকম চাঁদাবাজি না হয়। কিন্তু কে শোনে কার কথা। ভোমরাপোর্ট, কাষ্টমস্ অফিস সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রায় ২লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি করেছে ওই নেতা। এব্যাপারে ভোমরা আ’লীগ সভাপতি আ. গফুরের সাথে মোবাইল ফোনে আলাপকালে তিনি জানায়, শাঁখরা বাজারের দোকানদাররা দলকে ভালবেসে সবাই মিলে ৮০০০ টাকা দিয়েছে। আমি কারও কাছে চাইনি তবে অনেকে দলের ভালবাসার কারনে কিছু টাকা দেছে। আপনার লেখালেখির দরকার নেই আমি সাতক্ষীরায় এসে আপনার সাথে দেখা করবানি।