প্রাণ কেন্দ্রে প্রাণোচ্ছ্বল পরিবেশে শিশু কিশোরদের প্রিয় বাংলা কবিতা পাঠের আসর


প্রকাশিত : আগস্ট ১৮, ২০১৭ ||

 

মো.আসাদুজ্জামান সরদার, সাতক্ষীরা: “আমার পরিচয়” আমি জন্মেছি বাংলায়, আমি বাংলায় কথা বলি।/আমি বাংলার আলপথ দিয়ে হাজার বছর চলি।/চলি পলিমাটি কোমলে আমার চলার চিহ্ন ফেলে।/তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?/ আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে/আমি তো এসেছি সওদাগরের ডিঙার বহর থেকে।/আমি তো এসেছি কৈবর্তের বিদ্রোহী গ্রাম থেকে/আমি তো এসেছি পালযুগ নামে চিত্রকলার থেকে।/এসেছি বাঙালি পাহাড়পুরের বৌদ্ধবিহার থেকে/এসেছি বাঙালি জোড়বাংলার মন্দির বেদি থেকে।/এসেছি বাঙালি বরেন্দ্রভূমে সোনা মসজিদ থেকে/সব্যসাচী কবি সৈয়দ শামসুল হকের এই জনপ্রিয় কবিতা পাঠ করে সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী প্রজ্ঞা পারমিতা রহমান, সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী উপমা আহমেদ ও সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এহসানুল কাদির শান্ত।

সাম্যের কবি কাজী নজরুল ইসলামের সংকল্প কবিতা-‘থাকব না কো বদ্ধ ঘরে, দেখব এবার জগৎটাকে,/কেমন করে ঘুরছে মানুষ যুগান্তরের ঘূর্ণিপাকে। দেশ হতে দেশ দেশান্তরে এবং আধুনিক কবি শামসুর রাহমানের মুক্তযোদ্ধ ভিত্তিক কবিতা রৌদ্র লেখে জয়/বর্গি এল খাজনা নিতে/মারল মানুষ কত।….কবিতা পাঠ করে সরকারি উচ্চ বিদ্যালের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী এহসান আহমেদ সাবির।

সরকারি বালক বিদ্যালের ৩য় শ্রেণির শিক্ষার্থী অগ্র বিসর্গ পাঠ করেন: কুসুম কুমারী দাশের আদর্শ ছেলে: আমাদের দেশে হবে সেই ছেলে কবে/ কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হবে?/ মুখে হাসি বুকে বল, তেজে ভরা মন ‘মানুষ হইতে হবে’ এই যার পণ৷/বিপদ আসিলে কাছে হও আগুয়ান/…।

শরতের পড়ন্ত বিকেলে সাতক্ষীরা প্রাণ কেন্দ্রে বসেছিলো শিশু কিশোরদের প্রিয় বাংলা কবিতার আসর। জেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিশুদের কিশোর শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহণে প্রাণবন্ত হয়ে উঠে এই আসর। শিশু-কিশোরদের পাঠকৃত কবিতা শুনে মুগ্ধ হন উপস্থিত অতিথিবৃন্দ। শিশু কিশোরদের প্রিয় বাংলা কবিতা পাঠের আয়োজন করে জেলার অন্যতম সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান সাতক্ষীরা প্রাণ কেন্দ্র।

শুক্রবার বিকালে সাতক্ষীরা প্রাণকেন্দ্রে সাংবাদিক শরিফুল্লাহ কায়সার সুমনের সঞ্চলানায় কবি ও সাহিত্যিক গাজী শাহজান সিরাজ, প্রভাষক শ্রীকান্ত মন্ডল, সংস্কৃতিককর্মী মিলন্ট খান চৌধুরীর বিচারকের দায়িত্বে ছিলেন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন সরকারি বালক বিদ্যালয়ের শিক্ষক গাজী মোমিন উদ্দিন, সাংবাদিক আমিনা বিলকিস ময়না প্রমুখ।

এতে ৩০জন শিশু-কিশোর শিক্ষার্থী অংশ নেয়। অনুষ্ঠান শেষে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের পুরস্কার ও সনদপত্র প্রদান করা হয়।

প্রতিযোগীতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী প্রজ্ঞা পারমিতা রহমান, ২য় স্থান অধিকার করেন সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী উপমা আহমেদ এবং ৩য় স্থান অধিকার করেন সরকারি বালক বিদ্যালের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী এহসান আহমেদ সাব্বির।

বক্তারা বলেন, কবিতা চর্চা সমাজকে অনেক এগিয়ে নিতে পারে। অনেক তরুণ সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদের যাথে যুক্ত হচ্ছে। কবিতা পারে এই সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ রুখতে।