সাতক্ষীরায় ৫৬৪ ম-পে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি ”মা আসছেন নৌকায় যাবেন ভেলায় চড়ে”


প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭ ||

 

 

হিন্দু ধর্মাল্বামীদের সর্ববৃহত পূজা শারদীয় দূর্গাপুজা। প্রতিবছর দিনটির জন্য অপেক্ষা করেন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ।মা দূর্গা এবার আসছেন নৌকায় যাবেন ভেলায় চড়ে যে বার মা দেবীদূর্গা নৌকায় চড়ে আসেন সেবার বেশি বৃষ্টি হয় এবং ফসলাদি ভালো হয়। বছর জেলায় ৫৬৪ পূজা মন্ডবে শারদীয় দূর্গাপুজা অনুষ্ঠিত হবে। এখন চলছে রং তুলির কাজ। একই সাথে প্যান্ডেল সাজসজ্জা করতে ব্যস্ত সংশ্লিষ্টরা। এদিকে, সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণ পরিবেশে হিন্দু ধর্মালবম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা উদযাপনে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে জেলা পুলিশ।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের আহবায়ক সুভাষ চন্দ্র ঘোষ  জানান, বছর সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় ১০৫টি, তালায় ১৭৯টি, কলারোয়ায় ৪০টি, কালিগঞ্জে ৫২টি, শ্যামনগরে ৬৪টি, আশাশুনিতে ১০৪টি দেবহাটায় ২০টি পে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি চলছে।

পরমানন্দকাটি সার্বজনীন পূজা পের প্রতিমা শিল্পী কালিপদ দাস জানান, সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার মৌতলা ইউনিয়নের পরমানন্দকাটি সার্বজনীন পূজা পে চলছে দুর্গোৎসবের কাজ। দুমাস টানা কাজ করে একে একে ১১১টি প্রতিমা গড়েছেন কারিগররা।

তিনি আরও বলেন, জেলার সবচেয়ে আকর্ষণীয় প্রতিমা তৈরি হচ্ছে পরমানন্দকাটি সার্বজনীন পূজা পে। এই পে ধান, সাবু, চুমকি মাটির পৃথক চারটি দুর্গা প্রতিমাসহ ১১১টি প্রতিমা তৈরি হয়েছে। 

জেলা পূজা উদযাবন কমিটির সদস্য সত্যজীত ঘোষ জানান, বিপুল উৎসাহউদ্দীপনার মধ্যদিয়ে সাতক্ষীরা জেলার ৫৬৪টি পে চলছে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি। পে পে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কারিগররা। আশা করছি অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে এবছর উৎসবমূখর পরিবেশে দুর্গোৎসব পালিত হবে। এই উৎসব রূপ নেবে সম্প্রীতির সেতুবন্ধনে।

সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেন  বলেন, জেলা পুলিশ পূজা পগুলোকে সাধারণ, গুরুত্বপূর্ণ অধিক গুরুত্বপূর্ণএই তিনটি ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। পগুলোতে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব, বিজিবি, আনসার গ্রাম পুলিশ সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবে।