মুক্তিকামী বাঙালি লুঙ্গি-গামছার আশা না করে জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করেছিলেন: মুস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি


প্রকাশিত : ডিসেম্বর ৭, ২০১৭ ||

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: সাতক্ষীরা-১ (কলারোয়া ও তালা) আসনের সংসদ সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য এড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহ বলেছেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন আর ধারণ করে বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রেরণা সবার চলার পথের পাথেয়।’
বুধবার দুপুরে ৬ডিসেম্বর কলারোয়া পাক হানাদারমুক্ত দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় নিজের স্মৃতিচারণ করে মুস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি বলেন, ‘তখন ফাইভে পড়ার সময় যখন স্কুলের পাশ দিয়ে মুক্তিকামী যোদ্ধারা স্লোগান দিয়ে যেতো তখন আমরা উন্মুখ হয়ে থাকতাম স্কুলের ঘন্টা পড়লেই দৌড়ে তাদের সাথে যাবো।’
তিনি বলেন, ‘স্বশস্ত্র পাকিস্তান আর্মির বিরুদ্ধে নিরস্ত্র সাধারণ মুক্তিকামী বাঙালিরা কোন বেতন-ভাতা, লুঙ্গি-গামছার আশা না করে শুধুমাত্র দেশ স্বাধীনের প্রত্যাশায় জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছেন। তাদের প্রতি আমাদের বিন¤্র শ্রদ্ধা চিরকাল।’ কলারোয়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড। আলোচনা সভার আগে মুক্তিযোদ্ধা-জনতার এক বর্ণাঢ্য বিজয় র‌্যালী কলারোয়ার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে স্মৃতিচারণ করেন যুদ্ধকালীন সময়ে এ অঞ্চলের মুজিব বাহিনীর প্রধান এবং তালা-কলারোয়ার সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আ.লীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার শেখ মুজিবুর রহমান।
বিশেষ বক্তা ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সাবেক সাংসদ ও সাবেক কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান বিএম নজরুল ইসলাম।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন, কলারোয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন, যুদ্ধকালীন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দীন ও আব্দুল গফফার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মনিরা পারভীন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আরাফাত হোসেন ও সেলিনা আনোয়ার ময়না, জেলা পরিষদের সদস্য রোকেয়া মোসলেম ও আমজাদ হোসেন এবং কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব দেবনাথ ।
কলারোয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধারা, মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের নেতৃবৃন্দ, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন কলারোয়া পাবলিক ইন্সটিটিউটের সাধারণ সম্পাদক এড. শেখ কামাল রেজা।