এবার শিক্ষকের পায়ের ধূলা মাথায় নিলেন এমপি জগলুল হায়দার


প্রকাশিত : ডিসেম্বর ৮, ২০১৭ ||

এসএম শহীদুল ইসলাম: কবি কাজী কাদের নেওয়াজ’র লেখা ‘শিক্ষকের মর্যাদা’ কবিতাটি পড়েননি এমন মানুষ বোধ হয় খুঁজে পাওয়া কঠিন। কবিতাটির একাংশে বলা হয়েছে ‘আজ হতে চির-উন্নত হল শিক্ষাগুরুর শির’। এবার শিক্ষাগুরুর পায়ের ধূলা মাথায় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঝড় তুলেছেন সাতক্ষীরা-৪ আসনের সংসদ সদস্য এসএম জগলুল হায়দার। প্রবীন শিক্ষকের আশীর্বাদ নিয়ে এমপি জগলুল হায়দার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এসএম জগলুল হায়দার এমপির শিক্ষাগুরুর পায়ে হাত দিয়ে সালাম করার ছবি ছড়িয়ে পড়লে তা ভাইরাল হয়ে যায়। এতে ‘আদর্শ শিক্ষকের আদর্শ ছাত্র’ বলে মন্তব্য করেছেন অনেকেই। এমপি জগলুল হায়দারের এহেন মানবিক দরদ ভরা কাজকে অভিনন্দন জানিয়েছেন অনেকেই। এর আগে এমপি জগলুল হায়দার নিজের গায়ের চাদর শীতার্ত মানুষের গায়ে পরিয়ে দিয়ে মানবিকতার পরিচয় তুলে ধরেন। লাঙল চাষ, বেড়ি বাঁধ সংস্কারে শ্রমিকদের সাথে মাটির ঝুড়ি মাথায় নেয়া, অসহায় গরীব অন্নহীন শিশুর মুখে খাবার তুলে দেয়া, শ্রমিকদের সাথে বসে পানতা খাওয়া, পবিত্র রমজান মাসে ভিক্ষুকের বাড়িতে ইফতার নিয়ে হাজির হওয়া, তৃষ্ণার্ত ভ্যান চালককে ডাবের পানি পান করানো, কোরবানীর মাংস রান্না করে গরীবের বাড়ি বাড়ি নিজেই পৌছানোসহ বিভিন্ন মানবিক কাজ করে বারবার সংবাদের শিরোনাম হয়েছেন এসএম জগলুল হায়দার এমপি। এবার শিক্ষকের পা ছুঁয়ে সালাম করে শিক্ষাগুরুর আশীর্বাদ নিয়ে তিনি নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। জাহিদ হাসান নামক একজন ফেসবুক ব্যবহারকারীর আইডি থেকে জানা যায়, নলতা মাধ্যমিক বিদ্যলয়ের ছাত্র ছিলেন এসএম জগলুল হায়দার। আজ তিনি জাতীয় সংসদের সদস্য। স্কুলের আদর্শ শিক্ষক মুনসুর স্যার, যার শিক্ষকতা জীবনে বহু ছাত্রের জীবন হয়েছে আলোকিত। তার মধ্যে অন্যতম ছাত্র সাতক্ষীরা-৪ আসনের সংসদ সদস্য এসএম জগলুল হায়দার। বৃহস্পতিবার সকালে শ্যামনগর থেকে সাতক্ষীরার উদ্দেশ্যে রওনা দিলে নলতা রওজা শরীফ মোড়ে পৌছলে গাড়ির ভিতর তার নজরে পড়ে স্কুল জীবনের স্বনামধন্য শিক্ষক মনসুর স্যার রাস্তা দিয়ে হেঁটে বাড়িতে যাচ্ছেন। নলতা হাইস্কুলের প্রাক্তন ছাত্র জগলুল হায়দার তৎক্ষণাৎ ড্রাইভারকে গাড়ি থামাতে বলেন। তাৎক্ষণিক তিনি গাড়ি থেকে নেমে প্রিয় শিক্ষককে জড়িয়ে ধরেন এবং পায়ে হাত দিয়ে শিক্ষাগুরুকে সালাম করেন। এসময় শিক্ষক তার ছাত্রকে কাছে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে কেঁদে ফেলেন। তার আচরণে মুগ্ধ হয়ে শিক্ষক প্রাণভরে দোয়া করেন প্রিয় ছাত্রকে।