আড়াই মাস মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে হার মানলেন যুবলীগ কর্মী আল আমিন


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৮, ২০১৮ ||

মনিরুল ইসলাম মনি: আড়াই মাসেরও বেশি সময় ধরে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে সোমবার ভোরে হার মানলেন যুবলীগ কর্মী আল আমিন। গত ১৯ অক্টোবর দলীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর সমাবেশে যাওয়ার পথে ইঞ্জিনভ্যান উল্টে দুর্ঘটনায় জখম হয় সে। আল আমিন (২৩) সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার টিকেট গ্রামের জামাত আলী মোড়লের ছেলে।
দেবহাটা উপজেলার খাসখামার গ্রামের ফার্জিনা খাতুন জানান, নয় মাস আগে আল আমিনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। আল আমিন তার বাবা জামাত মোড়লের সঙ্গে নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে কাজ করতো। আওয়ামী যুবলীগের সে একজন সক্রিয় কর্মী ছিল। সংসার স্বচ্ছল ছিল। গত ১৯ অক্টোবর বিকেলে পারুলিয়া বাসস্ট্যা-ে যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে যাচ্ছিল আল আমিন। ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. আ ফ ম রুহুল হক। পথিমধ্যে ইঞ্জিন ভ্যান উল্টে কুমোরমারির শামীমের ঘেরের পাশে পড়ে যাওয়ায় মারাত্মক জখম হয় সে। দুর্ঘটনার পরপরই আশঙ্কজনক অবস্থায় তাকে প্রথমে সখীপুর স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ও পরে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ফরহাদ জামিল তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা জেনারেল হাসপাতাল বা ঢাকায় স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। তিনি আরো জানান, আল আমিনকে ২০ অক্টোবর দুপুরে সাতক্ষীরার ফারজানা ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। ডা. মনোয়র হোসেন রাতেই তার পেটের ক্ষত বিক্ষত নাড়ী অপারেশন করেন। অপারেশনের পর ডা. মনোয়র হোসেন ভারতে সরকারি প্রশিক্ষণে যাওয়ায় বাধ্য হয়ে তাকে ৩ নভেম্বর খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানকার দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক ডা. মেহরাব হোসেন তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। একপর্যায়ে তাকে ২৩ নভেম্বর খুলনার সিটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সেখানকার চিকিৎসক ডা. প্রশান্ত বিশ্বাসের পরামর্শ মত আল আমিনকে গত ২ ডিসেম্বর ডক্টরস প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আসাদুল¬াহ আল গালিব আল আমিন যতক্ষন মুখ দিয়ে খেতে না পারবে ততক্ষণ দ্বিতীয় বার অপারেশন করা যাবে না বলে পরামর্শ দেন। একপর্যায়ে তাকে ভারতে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ২৫ ডিসেম্বর বাড়িতে আনা হয়। সেখানে নিয়মিত চিকিৎসার পাশাপাশি পাসপোর্ট তৈরির জন্য ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু পাসপোর্ট হাতে পাওয়ার আগেই বাড়িতে কঙ্কালসার শরীর নিয়ে ধুকে ধুকে সোমবার ভোর ৫টার দিকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে আল আমিন।
মৃতের বাবা জামায়াত আলী জানান, সোমবার বাদ জোহর স্থানীয় টিকেট পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদের পাশে নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে আল আমিনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।