জানুয়ারী মাসে ৩৮ বিজিবির অভিযানে প্রায় দেড় কোটি টাকার চোরাচালান আটক


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৮ ||

আমিরুজ্জামান বাবু: ৩৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের আওতাধীন বিওপির সদস্যরা সীমান্তে কঠোর নজরদারির কারণে গত একমাসে এক কোটি ৪৪ লক্ষ ৯৪ হাজার ২৮০ টাকার চোরাচালান পণ্য আটক করেছে। এর মধ্যে ৬ লক্ষ এক হাজার ৭২৫ টাকার মাদকদ্রব্য বাকী এক কোটি ৩৮ লক্ষ ৯২ হাজার ৫৫৫ টাকার শাড়ী, কাপড়, থ্রি পিছ, ইমিটেশানসহ বিভিন্ন মালামাল রয়েছে।
বিজিবি ৩৮ ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল সরকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, যেখানেই মাদক সেখানেই হানা দেওয়া হবে। কোন মাদক ব্যাবসায়ীকে সীমান্ত এলাকায় প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। বর্তমান সীমান্তে মাদক নির্মুল ও চোরাচালান বন্ধে বিজিবি’র সদস্যরা সব সময় অতন্দ্র প্রহরীর দায়িত্ব পালন করে চলেছে। তবে ইদানিং মাদক চোরাকারবারীরা রাতের আঁধারে মাদকদ্রব্য পাচার করে আনার সময় বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র¿ সঙ্গে রাখে। যে কারণে বিজিবি সদস্যদের সব সময় ঝুঁকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় জনগণকে সচেতন হয়ে চিহ্নিত মাদক চোরাকারবারীদের কে ধরার ব্যাপারে বিজিবিকে সাহায্য করার জন্য ৩৮ ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক অনুরোধ জানান। ইতোমধ্যে বেশ কিছু চোরাকারবারীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে।
এদিকে সীমান্তের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে বসবাসরত একাধিক ব্যক্তির সাথে আলাপ করে জানা যায়, বর্তমান ৩৮ বিজিবি’র অধিনায়ক লে. কর্নেল সরকার মোস্তাফিজুর রহমান যোগদান করার পর থেকে চোরাকারবারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহন করার কারণে মাদকদ্রব্য ও চোরাকারবারী রাঘব বোয়ালদের আপাতত কোন হদিস বা কান দেখা যাচ্ছে না। তারা এখন পিছু হটতে শুরু করেছে। তবে রাতের আঁধারে কিছু ছিচকে চোরাকারবারীদের সীমান্তে ঘোরা ফেরা করতে দেখা যায়। ৩৮ বিজিবি আধিনায়ক জানান, চোরাচালান রোধে সীমান্ত এলাকায় বিজিবির টহল জোরদার করা হয়েছে। তিনি চোরাচালান প্রতিরোধে বিজিবিকে সহযোগিতা করার জন্য সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করেন।