কালো আইন কিংবা জেল জরিমানা করে অনুসন্ধানী সাংকাদিকতা বন্ধ করা যাবে না


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ ||

দেবহাটায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ৩২ ধারা বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সাংবাদিকরা বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ৩২ ধারা মাধ্যমে গণমাধ্যমের কন্ঠারোধ করার পরিকল্পনা চলছে। যা স্বাধীন দেশের মানুষ কখনো মেনে নিবে না। দেশে অনেক আইন চালু হয়েছে এবং তা বাস্তবায়নও হয়েছে। কিন্তু সাংবাদিক হত্যাকারিদের বিরুদ্ধে সাংবাদিক নির্যাতনকারীদের বিরুদ্ধে এখনো কোন আইন কিংবা ধারা তৈরি করা হয়নি। পেশাগত দায়ীত্ব পালন করতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত সাংবাদিক হত্যার বিচার একটাও হয়নি। দেশে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনাও কমেনি। মঙ্গলবার দেবহাটা প্রেসক্লাব ও রিপোর্টাস ক্লাবের আয়োজনে পারুলিয়া বাসস্টান্ডে মানববন্ধনে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রোনিক মিডিয়ার কর্মরত গণমাধ্যম কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধনে দেবহাটা প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্দুল ওহাবের সভাপতিত্বে রিয়াজুল ইসলামের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, রিপোর্টাস ক্লাবের সভাপতি মীর খায়রুল আলম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রব লিটু, কুলিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, দেবহাটা প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান, সদস্য এস.এম নাসির উদ্দীন প্রমূখ।
মানববন্ধনে সাংবাদিকরা বলেন, এখন ৩২ধারা নামে সাংবাদিকদের পায়ে শিকল পড়ানোর চেষ্টা চলছে। দেশের মানুষকে অন্ধকারে ঠেলে দেওয়ার আর এক নাম ৩২ধারা। এ আইনের ফলে শুধু সাংবাদিকদের জন্য নয় সাধারণ মানুষ ও অফিসের নিচের সারির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে অপব্যবহার করা হবে। সাংবাদিকদের জন্য এ ধরনের কোনো আইন থাকতে পারে না। আইন করে সাংবাদিকদের কণ্ঠরোধ করা যাবে না। সরকার আমাদের কথা দিয়েছিল, ৫৭ ধারা বাতিল করা হবে। কিন্তু বাতিলের নামে ডিজিটাল তথ্য প্রযুক্তি আইনের নামে যে কালো আইন করা হয়েছে তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না। আমরা সংবাদকর্মীরা দেশের জন্য কাজ করি, দেশের মানুষের জন্য কাজ করি। কালো আইন কিংবা জেল জরিমানা করে অনুসন্ধানী সাংকাদিকতা বন্ধ করা যাবে না। সত্য প্রকাশ, দেশ ও জাতির কল্যাণে, সত্যের সন্ধানে সাংবাদিকরা কাজ করে। এসময় সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদকর্মী উপস্থিত ছিলেন ।