সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতার উদ্বোধন


প্রকাশিত : মার্চ ৪, ২০১৮ ||

আব্দুর রহমান: ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা ও আনন্দমুখর পরিবেশে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘ক্রীড়ামোদী শিক্ষাঙ্গণ সবার পাবে অভিনন্দন’ স্লোগানে রবিবার সকাল ১০টায় সরকারি কলেজ মাঠে বেলুন, ফেস্টুন এবং শান্তির প্রতিক পায়রা উড়িয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন সাতক্ষীরা ২ আসনের সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি।
রোববার সকালে বসন্ত বাতাসে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উপলক্ষে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ ক্যাম্পাস ছিলো উৎসবমুখর। সকাল থেকে দলে দলে ক্যাম্পাসে আসতে শুরু করে শিক্ষার্থীরা। সহপাঠীদের সঙ্গে দীর্ঘদিন পর দেখা হওয়ায় তাদের মাঝে উষ্ণভাব বিনিময় করতে দেখা যায়। উচ্ছ্বলতায় আড্ডায় আর প্রাণে প্রাণে মেতে ওঠে শিক্ষার্থীরা। সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বিশ্বাস সুদেব কুমারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর এমএম আফজাল হোসেন, সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর লিয়াকত পারভেজ, সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল হামিদ, প্রফেসর শেখ আব্দুল ওয়াদুদ, সাতক্ষীরা পৌরসভার কাউন্সিলর জ্যোস্না আরা, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পরিচালনা কমিটির আহবায়ক মো. আবুল কালাম আজাদ, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদিকুর রহমান, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শাহেদ পারভেজ ইমন প্রমুখ।
পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি বলেন, লেখা পড়ার পাশাপাশি খেলা-ধুলার বিকল্প নেই। খেলাধুলা শিক্ষার্থীদের মেধা ও মনকে বিকাশিত করে। আজকের তরুণরাই আগামী দিনে দেশের নেতৃত্ব দেবে। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, তোমরা যেন কখনো মাদকাসক্ত হবে না। বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে তোমাদের পিছিয়ে পড়লে চলবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে তোমাদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় যারা বিজয়ী হতে পারোনি, তাদের মন খারাপ না করে আগামী দিনে বিজয়ী হওয়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে চলো। এমপি মীর মোস্তাক আহমেদ রবি আরো বলেন, বিশ্বের ক্রীড়াঙ্গণে সাতক্ষীরা জেলার নামটি সৌম্য, মোস্তাফিজ ও সাবিনাসহ অনেকেই উজ্জল করেছে। ক্রীড়াবীদদের সুবিধার্থে শিগ্রই একটি ‘ক্রীড়া কমপ্লেক্স’ নির্মাণ করা হবে। যাতে আগামী দিনে জাতীয় ক্রিকেট দলের ১১ জন খেলোয়াড়ই সাতক্ষীরার হতে পারে। সাতক্ষীরাবাসির প্রাণের দাবি দক্ষিণাঞ্চলের এই বিদ্যাপীঠটি ‘বিশ^বিদ্যালয়’ হিসেবে পরিণত করা হবে। এসময় উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক আমানউল্লাহ আল হাদী, অধ্যাপক আবু হাশেম, অধ্যাপক জিয়াউর রহমান, প্রভাষক আবুল কালাম আজাদ, নিগার সুলতানা, মফিজুল ইসলাম, অরুণাংশু কুমার বিশ্বাস, প্রভাষক শাহিনুর রহমান, ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক আবুল কালাম আজাদসহ কলেজের সকল বিভাগের শিক্ষক শিক্ষার্থী ও সুধীজন।