আশাশুনিতে ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রীর আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি প্রদান: গ্রেপ্তার এক


প্রকাশিত : মার্চ ৯, ২০১৮ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: আশাশুনি উপজেলার কুল¬্যা ইউনিয়নের একটি গ্রামের চতুর্থ শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় হুমকি দেয়ার অভিযোগে বানু বেগম নামের এক নারীকে বৃহস্পতিবার রাতে তার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার স্কুল ছাত্রী আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেছে। সাতক্ষীরার আমলী আদালত-২ এর বিচারক রাজীব কুমার রায় এ জবানবন্দি গ্রহণ করেন। এদিকে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করলে ফল ভাল হবে না বলে ধর্ষিতার পরিবারকে হুমকি দেওয়ায় বানু বেগম নামের এক নারীকে বৃহস্পতিবার রাতে তার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত বানু বেগম আশাশুনি উপজেলার পুরহিতপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী। আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিদুল ইসলাম শাহিন জানান, উপজেলার স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ৪ মার্চ সন্ধ্যায় বাড়ির পাশে টিউবওয়েলে পানি আনতে গেলে পুরোহিতপুর গ্রামের মৃত শহর আলী সরদারের ছেলে মোহাম্মাদ আলী (৫৫) তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে বাড়ির পাশে একটি আম বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে। বিষয়টি মীমাংসা করে নেওয়ার জন্য স্থানীয়ভাবে ছাত্রীর পরিবারকে চাপ দেওয়া হয়। একপর্যায়ে শালিসী সভা ডাকায় ধর্ষকের স্ত্রী ধর্ষিতার পরিবারের সদস্যদের খুন জখম করার হুমকি দেয়। বৃহস্পতিবার রাতে ওই ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে মোহাম্মাদ আলি ও তার স্ত্রীকে বানু বেগমকে আসামী করে আশাশুনি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) ধারায় একটি মামলা দায়েরে করেন। বৃহস্পতিবার রাতেই পুলিশ ধর্ষকের স্ত্রী বানু বেগমকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠায়। মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল ও ২২ ধারায় জবানবন্দির জন্য শুক্রবার আদালতে পাঠানো হয়। সাতক্ষীরা পুলিশ কোর্টের পরিদর্শক আশরাকুল বারী জানান, সদর হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে বিচারক রাজীব রায়ের কাছে ২২ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে ওই ছাত্রী।