অপরিচিতার আত্মকথা


প্রকাশিত : মার্চ ১০, ২০১৮ ||

অপরিচিতা

অত্যাধুনিক যুগের এক স্বল্প আধুনিক গ্রামের

নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের প্রথম কন্যা সে

ঊনিশ বছর বয়সী তরুণী,

বাবা মা কন্যাদ্বায় নিয়ে চিন্তিত

উচ্চ শিক্ষা মেয়েদের জন্য নয়

বক্তব্য ছিলো তাদের এমনই।

যেখানে বিশ্ব ছুটে চলেছে প্রযুক্তির পিছে

সেখানে আজও সে গ্রাম

আচ্ছন্ন করেছে তাদের কুসংস্কারের আবরণ

মলিন যুগে পড়ে আছে মিছে।

মেয়েটি ছিলো খুব সাধারণ

হয়তো একটু বেশি

তাইতো যখন সবাই নিজেকে নিয়ে ভাবে

তখন তার মন ঘুরে বেড়ায়

দরিদ্র সুস্থ মানুষের গলিতে।

লোভাতুর অন্ন দেখে সবার চোখ যখন

চকচকিয়ে উঠে

গোগ্রাসে গিলতে ব্যস্ত থাকে

তখন সে আনমনা হয়

ভাবে, বুঝি কতজন আছে অনাহারে

কতজনের ভাগ্যে সামান্য নুন-ভাত জুটে নাই।

একই দেশ একই ধরনের মানুষ

তবুও কতো বৈষম্য, কত ভেদ !

দরিদ্র যেনো মানুষই নয়

এতোখানিই তারা তুচ্ছ

এসব দেখে ঘৃণা হয়

সে ঘৃণা অত্যন্ত গভীর

নিজের প্রতি ঘৃণা হয়

ঘৃণা হয় সমাজের প্রতিও।

অসহ্য হয়ে ওঠে এই অবিচার,

মনে হয় অনেক কিছুই করা দরকার

কিন্তু না, সে যে মেয়ে!

নিম্ন মধ্যবিত্ত মেয়ে, তাকে সংসার করা সাজে

এসব অহেতুক চিন্তা,সবটাই যেনো বাজে।

এভাবে আর কতকাল সইতে হবে?

এই গ্লনি আর কতকাল বইতে হবে?

কে জানে! কে সে প্রশ্নের উত্তর দিবে?

সেই অন্ধকার নারী বিরোধী যুগ কি আবার এলো

যখন বেগম রোকেয়া সুফিয়া কামালেরা জন্মেছিলো?

সাখাওয়াত হোসেন, নেহাল করিমের মতো

কেউ কি জন্মাবে আর?

যারা যুগে যুগে প্রতিষ্ঠা করবে

নারীর অধিকার।

খুব বেশি কি কঠিন হবে

আরও এক সাহসীনি গড়তে?

একা মেয়েটি লড়তে পায়না ভয়,

শুধু পাশে সাদা মনের কাউকে চায়।

যে এসেছিলো কোন এক অবেলায়

জানিনা কি দোষে গিয়েছে হারায়।

ফিরে এসো কাছে

কথা দিলাম একাই লড়বো

স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়বো

শুধু তুমি থেকো পাশে।