কেশবপুরে মহিলা মেম্বরের বিরুদ্ধে গ্রামবাসিকে অত্যাচারের অভিযোগ


প্রকাশিত : মে ১৪, ২০১৮ ||

 

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের কেশবপুরে সাবেক এক মহিলা মেম্বরের মিথ্যা হয়রানীমূলক মামলায় অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে বেগমপুর গ্রামের নিরীহ মানুষ। ওই মেম্বরের অত্যাচার থেকে পরিত্রাণ পেতে গত গত মে তার সৎ মেয়ে আলেয়া বেগম বাদী হয়ে কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ করেন। এতে এলাকার ৩৫জন ভুক্তভোগী স্বাক্ষর করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বেগমপুর গ্রামের মোজাম সরদারের স্ত্রী সাবেক মেম্বর রাশিদা বেগম দীর্ঘদিন ধরে তিনি তার দুমেয়েকে  দিয়ে নিরীহ ব্যক্তিদের নামে মিথ্যা হয়রানীমূলক মামলা দিয়ে সাধারণ মানুষকে অতিষ্ঠ করে তুলেছেন। বেগমপুর গ্রামের সোনাই সরদারের পরিবারের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে মেম্বর প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা হাতিয়েছেন। গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের পরিবারের নামে কয়েকটি মিথ্যা মামলা দিয়ে পরিাবারটিকে সর্বশান্ত করেছেন। এলাকার সামাদ দফাদারের স্ত্রী সুফিয়া বেগম, খোরশেদ দফাদারের স্ত্রী হাছিনা বেগম, আব্দুল কাদেরের ছেলে আব্দুল গনির পরিবারের সদস্যসহ এলাকার বহু নিরীহ ব্যক্তিদেরকে মারপিট মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী সর্বশান্ত করেছেন উক্ত রাশিদা মেম্বর। একাধিক ব্যক্তির সাথে বিয়ে করে কোথাও স্থায়ীভাবে সংসার করেননি।

এসব কারণে রাশিদা বেগমের সৎ মেয়ে আলেয়া বেগম বাদী হয়ে রাশিদা বেগম, সৎ ভাই মো. রনি, সৎ বোন সাবিনা ইয়াসমিন পিতা মোজাম সরদারের নামে ওই অভিযোগ করেন। ভুক্তভোগীরা প্রশাসনের কাছে ওই মহিলা মেম্বরকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে এলাকার নিরীহ মানুষকে তার জিম্মিদশা থেকে মুক্ত করার জোর দাবি জানিয়েছেন।

বিষয়ে সাবেক মেম্বর রাশিদা বেগম ঘটনার আংশিক স্বীকার করে বলেন, সম্পত্তির লোভে তার সৎ মেয়ে তাকে হেয় প্রতিপন্ন করতে অভিযোগটি করেছে।

ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মিজানুর রহমান জানান, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।