কালিগঞ্জে সরাকারি পাকা রাস্তা মৎস্য ঘেরের বাঁধ!


প্রকাশিত : মে ১৫, ২০১৮ ||

 

ধ্বসে পড়ছে রাস্তা, উপড়ে পড়ছে গাছ

বিশেষ প্রতিনিধি: কালিগঞ্জে ঘের ব্যাবসায়ী ও শিল্পপতি মতিউর রহমান মতি নিজের ঘেরের বাঁধ হিসেবে ব্যবহার করছেন সরকারি রাস্তা। দীর্ঘদিন বাঁধ হিসেবে ব্যবহারের ফলে পানির চাপে সরকারি এই রাস্তা ও গাছ ধ্বসে পড়ছে। কালিগঞ্জ সার্কেল অফিস সংলগ্ন তালেব গাজীর মোড় থেকে পাউখালী পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি হুমকির মুখে পড়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তালেব গাজীর মোড় থেকে পাউখালী পর্যন্ত রাস্তাটি প্রায় ২ কিলোমিটার। এই রাস্তাদিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষসহ যানবহন চলাচল করে। এই জনবহুল রাস্তার যমুনার চর কালভার্ট এলাকায় কয়েক বছর যাবত বাণিজ্যিক ভিত্তিতে মাছের ঘের করছেন কুশুলিয়া ইউনিয়নের মৃত কামাল হোসেনের ছেলে মতিউর রহমান মতি ওরফে ভাটা মতি। প্রায় ১০ একর জমিতে তিনি মাছ চাষের জন্য গভীর পানি রক্ষণাবেক্ষণে বাঁধ হিসেবে ব্যাবহার করছেন সরকারি রাস্তা। এর ফলে রাস্তাটি ধ্বস নেমে নষ্ট হয়ে গেছে। সে কারণে এই রাস্তা দিয়ে সাধারণ মানুষ ও ছোট-বড় যানবাহন চলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়ছেন। রাস্তা ধ্বসে যাওয়ায় রাস্তার পাশের বড় বড় গাছ উপড়ে পড়ছে।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কালিগঞ্জ ইউনিটের ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল হাকিম জানান, রাস্তার পাশে ঘের করতে হলে কিছু নিয়ম অনুসরণ করতে হয়। কিন্তু মতিউর রহমান মতি প্রভাবশালী হওয়ায় তিনি কাউকে তোয়াক্কা করেন না। নিজের ইচ্ছামত সরকারি রাস্তাকে ঘেরের বাঁধ হিসেবে ব্যাবহার করে দেশের অনেক বড় ক্ষতি করছেন। আবুল হোসেন নামে একজন পথচারী বলেন, আমাদের চলাচলের জন্য এই রাস্তাটি ছাড়া আর কোন রাস্তা নেই। সরকার রাস্তাটি পিচ করে দিয়েছে মানুষের কষ্ট লাঘব করার জন্য। কিন্তু এই মাছের ঘেরের কারণে রাস্তাটি ধ্বস নেমে নষ্ট হচ্ছে।

এ ব্যাপারে ঘের মালিক মতিউর রহমান মতির কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি খুব দ্রুত ঘেরের পাশের রাস্তাটি মেরামত করে দিবো। সরকারি রাস্তা ঘেরের বাঁধ হিসেবে ব্যাবহার করার ব্যাপারে কালিগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী সাহাবুল আলম বলেন, আমি মতি সাহেবকে অনেক বার বলেছি কিন্তু উনি কোন প্রকার কেয়ার করেন না। তাকে নিষেধ করার পরও রাতের আধারে ২০ থেকে  ২৫ টনের ট্রাক ওই রাস্তার পাশে রেখে ঘেরের মাছ লোড করেন। এ কারণে রাস্তাটি আরও ভেঙ্গে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, মতিউর রহমানকে বলে বলে আমি ক্লান্ত হয়ে গেছি। আসলে উনার টাকা থাকলেও কোন মান সম্মান জ্ঞান নেই। এমতাবস্থায় জনগুরুত্বপূর্ণ সরকারি রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানিয়েছেন এলাকার সচেতন মহল।