জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কম্পিউটার অপারেটরের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ


প্রকাশিত : জুন ১০, ২০১৮ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: জেলা প্রাথমিক অফিসের কম্পিউটার অপারেটর আব্দুস সালামের অনিয়ম স্বেচ্ছাচারিতায় নাজেহাল হয়ে পড়েছেন সাধারণ শিক্ষকরা। সাতক্ষীরা জেলায় টানা ১৭ বছর ধরে সাধারণ শিক্ষকদের উপর ছড়ি ঘুরাচ্ছেন আব্দুস সালাম। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে সাধারণ শিক্ষকরা কোনো কাজ নিয়ে গেলে কিম্বা কোনো সমস্যা নিয়ে গেলে তিনি অঘোষিত শিক্ষা অফিসারের ভূমিকা পালন করেন। সাধারণ শিক্ষকদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন। কথায় কথায় শিক্ষকদের অপমানিত করেন। অফিসের কাজ বাদ দিয়ে নিজের কাজে ব্যস্ত থাকেন তিনি। এমন অভিযোগ করে সাধারণ শিক্ষকরা বলেন, ২০০০ সালের ৫মার্চ এই আব্দুস সালাম সাতক্ষীরা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে যোগদানের পর ঘুষ দুর্নীতি আর স্বেচ্ছাচারিতার এক অন্যতম প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে শিক্ষা অফিস। শুধু তাই নয়, সরকারের গোপন তথ্য পাচারেরও অভিযোগ করেন শিক্ষকরা। পরীক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য পাচার করে তিনি অবৈধ টাকার মালিক হয়েছেন বলে সাধারণ শিক্ষকরা জানান। শিক্ষকরা বলেন, জামাত সমর্থক আব্দুস সালাম অনিয়ম দুর্নীতি ও ঘুষের টাকায় খুলনার ফুলতলায় ২০১১ সালে ২০ লক্ষ টাকা খরচ করে ছয় শতক জমি কিনেছেন। ২০১৬-২০১৭ সালে বদলি বাণিজ্য করে হাতিয়েছেন প্রায় অর্ধকোটি টাকা। সাধারণ শিক্ষকরা কোনো কাজ নিয়ে গেলে তিনি টাকা ছাড়া ফাইল খুলেও দেখেন না। এর প্রতিবাদ করলে শিক্ষকদের চাকরি খাওয়ার ভয় দেখান তিনি। ফলে সাধারণ শিক্ষকরা তার ভয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। শিক্ষকরা এই দুর্নীতিবাজ কম্পিউটার অপারেটরের অবিলম্বে অপসারণের দাবি জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আব্দুস সালামের কাছে সমুদয় অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি অস্বীকার করে বলেন, শিক্ষা অফিসের একটি কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্রের শিকার তিনি।