প্রস্তাবিত বাজেটে তামাক কোম্পানি সুবিধা পাওয়ায় তামাক নিয়ন্ত্রণ উপেক্ষিত


প্রকাশিত : জুন ১০, ২০১৮ ||

দেবহাটা প্রতিনিধি: ৮ জুন শ্যামলীস্থ ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য সেক্টরের সভাকক্ষে আয়োজিত বাজেটে তামাক নিয়ন্ত্রণের প্রতিক্রিয়ায় বক্তারা বলেন, তামাক নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে যে সব রাজস্ব প্রস্তাবনা করা হয়েছে সেগুলোর কার্যকারিতা যথেষ্ট প্রশ্নবিদ্ধ। বাজেট প্রস্তাবনা দেখে মনে হয়েছে তামাক কর প্রস্তাবনার তামাক কোম্পানী ও ব্যবসায়ীদের বেশ প্রভাব রয়েছে। বিশেষ করে বিড়ির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। তামাক নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে আমাদের দীর্ঘদিনের আন্দোলনের অভিজ্ঞতা থেকে আমরা নির্দ্বিধায় বলতে পারি যে তামাক নিয়ন্ত্রণের জন্য কার্যকর রাজস্ব পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হলে সরকারকে তামাক ব্যবসায়ীদের ফাঁদ থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। বাজেট প্রতিক্রিয়া অনুষ্ঠানে মূলবক্তব্য উপস্থাপন করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য সেক্টরের প্রধান ইকবাল মাসুদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের সমন্বয়কারী মোখলেছুর রহমান, প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রমের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মাহফিদা দিনা রুবাইয়া, মানসিক স্বাস্থ্য কার্যক্রমের সমন্বয়কারী আমির হোসেন ও নারী মাদকাসক্তি কার্যক্রমের প্রোগ্রাম অফিসার উম্মে জান্নাত প্রমূখ। এবারের বাজেটে বিদেশী তামাক কোম্পানী গুলোকে ব্যাবসা প্রসারে সুবিধা করে দেবে কারন দামি সিগারেটের দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে এবং সম্পূরক শুল্ক ৬৫% অপরিবর্তিত থাকছে। মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির সাথে সামজ্ঞস্য না রেখে তামাক কর নির্ধারণ করা হয়েছে। যা বাস্তবিক কোন প্রভাব পড়বে না।