তিন উপজেলার গোপন বৈঠক থেকে জামাতের সেক্রেটারিসহ গ্রেপ্তার ৫


প্রকাশিত : জুন ৩০, ২০১৮ ||

পত্রদূত ডেস্ক: নাশকতার পরিকল্পনা নিয়ে গোপন বৈঠককালে তিন উপজেলা জামাতের সেক্রেটারিসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় সেখান থেকে বিপুল পরিমান জিহাদী বই, লিফলেট ও বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার সকালে আশাশুনি উপজেলা জামাতের প্রচার সম্পাদক শাহীন সরদারের বাড়ি থেকে এ গ্রেপ্তার ও উদ্ধারের ঘটনা ঘটে।
এদিকে প্রতাপনগর এলাকার একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, সিটি কলেজের সহকারি অধ্যক্ষ শহীদুল ইসলাম মুকুলের সঙ্গে শাহীন সরদারের বাড়িতে গোপন বৈঠক করতে আসতো সিটি কলেজের দর্শণ বিভাগের শিক্ষক নাশকতা মামলার আসামী জামায়াত নেতা জাহাঙ্গীর আলম, রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক রাষ্ট্রদ্রোহ ও ৮টি নাশকতা মামলার আসামী একে ফজলুল হক, লাইব্রেরিয়ান ও দেলায়ার হোসেন সাঈদী মুক্তিমঞ্চের সংগঠক কামরুল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক রেজাউল ইসলাম, ইউনুস আলী, একই কলেজের শিক্ষক ধুলিহরের আব্দুল ওয়াদুদ, ধুলিহর ইউনিয়নের বড়দল গ্রামের জলিল কারিকরের ছেলে জামাত নেতা আব্দুল মজিদ কারিকরসহ(৪০) কয়েকজন। বৃহস্পতিবার রাতে তাদেরকে শাহীন সরদারের বাড়িতে দেখা গেছে। পুলিশ আসতে পারে এমন খবর পেয়ে তার পালিয়ে গেছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, কালিগঞ্জ উপজেলার মহৎপুর গ্রামের মৃত সায়েদউদ্দিনের ছেলে উপজেলা জামাতের সাবেক সেক্রেটারি ও কালিগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক মোসলেম উদ্দিন (৫৩), আশাশুনি উপজেলা সদরের আশাশুনি গ্রামের হামজা আলীর ছেলে উপজেলা জামাতের সেক্রেটারি আবু মুছা তারিক ওরফে তুষার(৫২), কলারোয়া উপজেলার লাঙ্গলঝাড়া গ্রামের রুস্তুম আলীর ছেলে সাতক্ষীরা সিটি কলেজের উপাধ্যক্ষ ছাত্রলীগ নেতা মামুন হত্যা মামলার ২নং আসামী কলারোয়া উপাজেলা জামাতের সাবেক আমীর জামাতের কেন্দ্রীয় সুরা সদস্য শহীদুল ইসলাম মুকুল (৫৭), আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর ইউনিয়ন জামাতের সেক্রেটারী প্রতাপনগর গ্রামের খলিলুর রহমান ও আশাশুনি উপজেলা জামাতের প্রচার সম্পাদক প্রতাপনগর গ্রামের শাহীন সরদার (৪৮)।
আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, প্রতাপনগর গ্রামে জামাতের গোপন বৈঠক চলছে- এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার সকালে সেখানে অভিযান চালানো হয়। এ সময় শাহীন সরদারের বাড়ি থেকে তিন উপজেলা জামাতের সেক্রেটারিসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় দু’বস্তা জিহাদী বই, জঙ্গি সংগঠনের বইসহ বিপুল পরিমানে বিস্ফারক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে হত্যা, নাশকতাসহ একাধিক মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় উপপরিদর্শক হাসান আলী বাদি হয়ে গ্রেপ্তারকৃত ৫ জনসহ অজ্ঞাতনামা ১৪/১৫ জনের বিরুদ্ধে নাশকতা ও বিস্ফারক দ্রব্য আইনে শুক্রবার থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।