বেনাপোলে কোরবানির জন্য দেশি জাতের ৫০ হাজার পশু প্রস্তুত


প্রকাশিত : আগস্ট ১০, ২০১৮ ||

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি: পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে যশোরের শার্শা-বেনাপোলে গরু, ছাগল, ভেড়া ও মহিষ মিলে প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক কোরবানির পশু প্রস্তুত করেছেন খামারিরা। উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে এসব পশু সরবরাহ করা হবে দেশের বিভিন্ন স্থানে। পশু পরিচর্যায় ব্যস্ত খামারী। ভারতীয় পশু কম আসায় দেশি পশুর চাহিদা বেড়েছে। এতে লাভবান হচ্ছে চাষীরা। অনেকের দেশি জাতের গরু পালনে সংসারে ফিরছে সুদিন।
আসছেনা ভারতীয় পশু। তাই দেশি জাতের গরু পেলে লাভবান তারা। খড়কুটা ঘাস দিয়ে পালা যায় গরু। খরচ হয় কম। লাগে না এন্টিবায়োটিক। ফলে দেশি গরু পালন করে লাভবান হচ্ছেন তারা।
স্থানীয় গরু খামারী আলতাফ হোসেন, সাহেব আলী ও নারগিস সুলতানা বলেন, দেশি গরু পালন করে ভালই আছেন তারা। চাহিদা ও দাম ভালে পেয়ে খুশি তারা।
শাশা উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকতা জয়দেব কুমার সিংহ বলেন, ছোট বড় মিলে ২ হাজার ৬০০টি পশুর খামার রয়েছে। কোরবানীর ঈদকে টার্গেট করে এসব খামারে বিক্রির উপযোগী পশু মজুদ করা হয়। পশুর হাটগুলোতে কেনা-বেচা শুরু হয়েছে। এসব এলাকা চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানি করা হয় কুষ্টিয়া ঢাকা, সিলেট ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকারি বজারে। অনেক ক্রেতারা খামার থেকে কোরবানির পশু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন বাইরে। এন্টিবায়োটিক মুক্ত গরু পালনে প্রশিক্ষণ পরামর্শ ও তদারকি করছেন প্রাণি সম্পদ বিভাগ। দেশী জাতের গরু পালন করে লাভবান হচ্ছে তারা।