জেলায় তিনটি প্রাইমারি স্কুলের দেড় হাজার শিক্ষার্থীর লেখাপড়া হুমকির মুখে


প্রকাশিত : আগস্ট ১৮, ২০১৮ ||

পত্রদূত রিপোর্ট: জেলায় তিনটি প্রাইমারি স্কুলের দেড় হাজার শিক্ষার্থীর লেখাপড়া হুমকির মুখে পড়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্কুল তিনটির জমি দখল করার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। স্কুলগুলো হচ্ছে কলারোয়া উপজেলার গোপিনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কালিগঞ্জ উপজেলার সাদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শ্যামনগর উপজেলার নূরনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিষয়টি নিরসনের জন্য জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রুহুল অমীন গত ১৬ আগস্ট ১৭২২/১(১০) নং স্মারকে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) এবং মহাপরিচালক বরাবর পত্র দিয়েছেন। পত্রের মর্মানুযায়ি জানা গেছে, কলারোয়া উপজেলার গোপিনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচির ও গেট নির্মাণে বাঁধা দিচ্ছে স্থানীয় একটি মহল। স্কুলের মাঠে এলাকার মানুষ ঈদ উল ফিতর এবং ঈদ উল আযহার নামাজ আদায় করেন। স্কুলের সীমানা প্রাচির নির্মিত হলে সেখানে ঈদের নামাজের স্থান আরো সুরক্ষিত থাকবে। ঈদের সময় স্কুল ছুটি থাকে। ফলে ঈদের নামাজ আদায়ে স্কুলের মাঠ ব্যবহারে কোন সমস্যা নেই। কিন্তু এলাকার একটি বিশেষ মহল ঈদের নামাজের দোহাই দিয়ে স্কুলের সীমানা প্রাচির নির্মাণে বাঁধা দিচ্ছে।
এদিকে কালিগঞ্জ উপজেলার সাদপুর প্রাইমারি স্কুলে খেলার মাঠ বাদ রেখে সেখানে অবৈধভাবে দেয়াল নির্মাণ করছে একটি মহল। স্কুলের দুটি গাছও জোর করে কেটে নিয়েছে তারা। ফলে এ স্কুলের শিক্ষার পরিবেশ হুমকির মুখে পড়েছে বলে জানান শিক্ষা অফিসার।
এদিকে শ্যামনগর উপজেলার নূরনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি দখল করে সেখানে প্রাচির নির্মাণ করছে হাইস্কুল কর্তৃপক্ষ। ফলে সেখানেও শিক্ষার পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এলাকাবাসির বরাত দিয়ে শিক্ষা অফিসার জানান, জেলার তিন উপজেলার তিনটি প্রাইমারি স্কুলের প্রায় দেড় হাজার শিক্ষার্থীর লেখাপড়া হুমকির মুখে। স্থানীয় দলাদলির মুখে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত আজ ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে প্রাথমিক শিক্ষায় ব্যাপক ক্ষতি হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। তিনি এব্যাপারে সরকারের সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।