জেলায় উৎসব আনন্দে আজ পালিত হবে শ্যামাকালী পূজা ও দীপাবলী উৎসব


প্রকাশিত : November 6, 2018 ||

পত্রদূত ডেস্ক: হিন্দু সম্প্রদায়ের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব শ্যামাকালী পূজা আজ মঙ্গলবার রাতে অনুষ্ঠিত হবে। জেলায় ধর্মীয় উদ্দীপনায় ও সাড়ম্বরে উদযাপিত হচ্ছে শ্যামাপূজা ও দীপাবলী উৎসব। দুর্গাপূজার বিজয়া পরবর্তী কার্তিক মাসের অমাবস্যা তিথিতে সাধারণত শ্যামাপূজা বা কালীপূজা অনুষ্ঠিত হয়। অমাবস্যার রাতেই দীপাবলীর আয়োজন করা হয়। অমাবস্যার সমস্ত অন্ধকার দূর করতে এই রাতে প্রদীপ জ্বালানো হয়। যাতে পৃথিবী প্রতিনিয়ত অশুভ শক্তির হাত থেকে রক্ষা পেয়ে আলোকিত হয়। দেবী সৃষ্টিরক্ষায় মাতৃরূপে গৃহে গৃহে অবস্থান করেন। আবার অসুর বধে দেবী মাতংগিনীরূপে সব ধ্বংস করেন। সৃষ্টির রক্ষায় দেবতারা যখন ব্যর্থ, তখন বৈষ্ণব শক্তি শিব শবরূপে (মৃতদেহ) দেবীর আগমনপথে পড়ে রইলেন। মুন্ড-মালিনী উন্মাদিনী তার ডাকিনী-যোগিনী সংগে রণাঙ্গিনী বেশে ছুটে যাচ্ছেন। পায়ের নিচে শবরূপে (মৃত) পতি শিবকে দেখে দেবী লজ্জিত হয়ে জিভে কামড় দেন। যে দেবী রক্তপিপাসায় নিজের মস্তক কেটে ছিন্নমন্ডারূপে রক্তপান করছিলেন সেই দেবী লজ্জায় রণে ক্ষান্ত হলেন। লজ্জাই নারীর ভূষণ-এ সত্যই এখানে তুলে ধরা হয়েছে।
হিন্দু পূরাণমতে কালী দেবী দুর্গারই একটি শক্তি। সংস্কৃত ভাষার ‘কাল’ শব্দ থেকে এ কালি নামের উৎপত্তি। তবে সাধারণত ‘কাল’ অর্থ নির্ধারিত সময়। আবার এটি ‘মৃত্যু’ অর্থও প্রকাশ করে। এর সঙ্গে ‘কালো’র সম্পর্ক না থাকলেও লৌকিকভাবে এ অর্থটি প্রচলিত হয়ে গেছে। মহাভারত অনুসারে, কালী দুর্গার একটি রূপ (মহাভারত, ৪। ১৯৫)। এছাড়া মহাভারতে উল্লেখ আছে, যিনি নিহত যোদ্ধা ও পশুদের আত্মাকে বহন করেন, তাঁর নাম কালরাত্রি বা কালী। মহাভারতের ভীষ্মপর্বে পা-বদের বিজয় লাভের আঙ্কাাখায় কালীপূজার উল্লেখ পাওয়া যায়। ‘কালী’ নামটি উচ্চারিত হয়েছে অথর্ব বেদের ‘কথাগ্রহসূত্র’ ও ‘মু-কউপনিষদে’। তবে অনেকে মনে করে তিনি একান্তই সাঁওতালি দেবী। তাকে শিবের স্ত্রী পার্বতীরূপেও দেখা হয়। কালীর অন্য নাম শ্যামা বা আদ্যশক্তি। শাক্ত ধর্মাবলম্বীদের তন্ত্রশাস্ত্র মতে, তিনি দশমহাবিদ্যা। তন্ত্রমতে পূজিত প্রধান দশজন দেবীর মধ্যে প্রথম। ভক্তরা কালীকে বিশ্বব্রহ্মা- সৃষ্টির আদিকারণ মনে করেন। বাংলাদেশে কালীর মাতৃরূপের পূজা বিশেষ জনপ্রিয়। কালী পূজা হচ্ছে শক্তির পূজা। জগতের সকল অশুভ শক্তিকে পরাজিত করে শুভশক্তির বিজয়ের মধ্যেই রয়েছে কালীপূজার মাহাত্ম্য। কালী দেবী তার ভক্তদের কাছে শ্যামা, আদ্য মা, তারা মা, চিামুন্ডি, ভদ্রকালী, মহাকালী, শ্মশান কালী, দক্ষিণা কালী, দেবী মহামায়াসহ বিভিন্ন নামে পরিচিত।
আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হিন্দু সম্প্রদায় তাদের বাড়িতে ও শ্মশানে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করবে। এর মাধ্যমে অর্থাৎ জ্ঞানের অবস্থান এবং স্বর্গীয় পিতা-মাতা, আত্মীয়-স্বজনদের আত্মার শান্তি কামনা করা হয়। হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা কালীমাতার কাছে স্বামী-স্ত্রী, সন্তান ও স্বজনের কল্যাণ এবং দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনায় প্রার্থনা করে থাকে। দীপাবলীকে দিওয়ালী ছাড়াও দীপান্বিতা, দীপালিকা, সুখরাত্রি, সুখসুপ্তিকা এবং যক্ষরাত্রি নামেও অভিহিত হয়। মহালয়ায় শ্রাদ্ধগ্রহণের জন্য যমলোক ছেড়ে যে পিতৃপুরুষগণ মর্তে আগমন করেন বলে, তাঁদের পথ প্রদর্শনার্থে উল্কা জ্বালানো হয়। এ কারণে এদিন আলোকসজ্জা ও বাজি পোড়ানো হয়। কেউ কেউ রাত্রিতে নিজগৃহে দরজা-জানালায় মোতবাতি জ্বালায়, কেউ বা লম্বা বাঁশের মাথায় কাগজের তৈরি ছোট ঘরে প্রদীপ জ্বালায়। রামায়ন অনুসারে দীপাবলী দিনে ত্রেতা যুগে শ্রী রাম রাবণ বধ করে চৌদ্দ বছরের বনবাস শেষে অযোধ্যায় প্রত্যাবর্তন করেন। শ্রী রামের চৌদ্দ বছর পরের প্রত্যাবর্তনে সারা রাজ্যজুড়ে প্রদীপ জ্বালানো হয়। প্রজারা খুশীতে শব্দবাজি করে। বিষ্ণুপুরান মতে, বিষ্ণুর বামন অবতার অসুর বলিকে পাতালে পাঠান, দীপাবলী দিনে পৃথিবীতে এসে অন্ধকার ও অজ্ঞতা বিদূরিত করতে, ভালবাসা ও জ্ঞানের শিখা প্রজ্বলিত করতে অসুর বলিকে পৃথিবীতে এসে অযুদ প্রদীপ জ্বালানোর অনুমতি দেওয়া হয়।
জেলার বিভিন্ন পূজা মন্ডপে আজ অনুষ্ঠিত হবে দীপাবলী উৎসব এবং শ্রীশ্রী শ্যামা কালীপূজা। জেলার ও উপজেলার মন্দির গুলোতে অধিবাসের মাধ্যমে পূজার মাঙ্গলিক কর্মসূচি শুরু হয়েছে। নগরীর ঐতিহ্যবাহী সাতক্ষীরা পূরানো কালীবাড়ি, কাটিয়া পূজা মন্দির, ফিংড়ী মহাশ্মশান মন্দির, বুধহাটা মন্দির, শ্যামনগর, তালা, কলারোয়া, আশাশুনি, দেবহাটা, কলীগঞ্জসহ সাতক্ষীরা প্রায় মন্দিরে এ পূজা অনুষ্ঠিত হবে।
অনুষ্ঠানসূচিতে রয়েছে আজ ব্রাহ্মমুহূর্তে মায়ের আবাহন, বাল্য ভোগ, মায়ের পূজা ও ভোগরাগ, প্রসাদ বিতরণ, শ্যামা সংগীত ও ভক্তিমূলক গান, ধর্মীয় আলোচনা সভা, প্রদীপ প্রজ্জ্বলন। চন্ডীপাঠ ও রাত ১২টায় শ্রী শ্রী শ্যামা মায়ের মহাপূজা।