ছাত্রীদের টাকায় সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের বার্ষিক প্রীতিভোজ!


প্রকাশিত : জানুয়ারি ৩১, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: এই প্রথমবারের মতো সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের বার্ষিক প্রীতিভোজ অনুষ্ঠিত হলো ছাত্রীদের টাকায়। স্কুল প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর থেকে এধরনের ঘটনা এই প্রথম বলে দাবি করেছেন একাধিক অভিভাবক। এঘটনায় স্কুলের অভিভাবক মহলে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। জানা গেছে, ২৯ জানুয়ারি সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের বার্ষিক বনভোজন ছিলো। এ বনভোজন উপলক্ষে ছাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হয়েছে প্রায় ২ দুই লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা। সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থী রয়েছে দুই হাজার তিনশত। এদের মধ্যে তৃতীয় শ্রেণির ২৪০ জন শিক্ষার্থী এবং ৬ষ্ঠ ২৪জন শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করা হয়েছে দুইশত এবং বাকী শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেওয়া হয়েছে মাথাপিছু একশত টাকা। সব মিলিয়ে প্রায় ৩ লক্ষাধিক টাকার মিশন বাস্তবায়ন করা হয়েছে সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে। অভিভাকরা জানান, বিগত সময়ে ছাত্রীদের টিফিন বাবদ মাসে ৭৫ টাকা করে নেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। ওই টাকা থেকেই প্রতিবছর বার্ষিক প্রীতিভোজ (বনভোজন) আয়োজন করা হয়। শুধুমাত্র এবছরই ব্যতিক্রম করা হলো। তবে পাশ্ববর্তী বালক বিদ্যালয়ে কোন টাকা না নিয়ে বার্ষিক বনভোজন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়াও প্রীতিভোজে চাঁদা না দিয়েও শিক্ষকদের পুরোপরিবার আত্মীয় স্বজন অংশগ্রহণ করেন। প্রীতিভোজ শেষে বিদ্যালয়ে অনেক খাবার শিক্ষকরা তাদের বাড়িতে নিয়ে গেছেন। এবিষয়ে সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল¬াহ আল মামুনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ছাত্রীরা আয়োজন করেছে। সেকারণে তারা নিজেরাই চাঁদা দিয়েছেন। শিক্ষকরাও দিয়েছেন। এর আগে তো ছাত্রীদের দেওয়া লাগতো না এমন প্রশ্নে তিনি এড়িয়ে যান।