কুল্যার গাবতলা হাইস্কুলে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কমিটি গঠনের চেষ্টা


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৯ ||

কুল্যা (আশাশুনি) প্রতিনিধি: আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের গাবতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অনিয়মের মাধ্যমে কমিটি গঠনের কার্যক্রম শুরুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এলাকাবাসী ও অভিভাবকদের পক্ষ থেকে সঠিক পদ্ধতিতে পুনরায় কমিটি গঠন প্রক্রিয়া শুরুর জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন জানানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগসূত্রে জানা গেছে, স্কুলের প্রধান শিক্ষক পরিমল কুমার দাশ প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে অনিয়ম ও গোপনে গোপনে বিধি বহির্ভূতভাবে কমিটি গঠন প্রক্রিয়া চালিয়ে আসছেন। ফলে পকেট কমিটি গঠন করে নিজের ইচ্ছেমত প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে ফায়দা লুটে আসছেন। এবারও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। স্কুল এলাকায় কোন পত্রিকা আসেনা, এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে প্রধান শিক্ষক একটি পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিলেও মাইকিং করার বিধানকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মাইকিং না করে, সময়ের মুখোমুখি হলে নিজে গোপনে গোপনে কয়েকটা স্থানে নোটিশ লাগান। স্কুলের শিক্ষার্থী ও সহকারী শিক্ষকদেরকেও জানানো হয়নি। বিষয়টা তারা জানতে পেরে নমিনেশন জমাদানের শেষ দিন স্কুলে গিয়ে প্রধান শিক্ষককে না পেয়ে অফিস সহকারীর কাছে নমিনেশন পত্র পেতে চাইলে তিনি জানান, তার কাছে কোন নমিনেশনপত্র নেই। যেগুলো ছিল বিক্রয় হয়ে গেছে। বেলা ২টার পরে আসেন। তখন প্রধান শিক্ষক আসবেন বলে জানান হয়। ২টার পরে স্কুলে গেলে তখন শিক্ষা অফিস থেকে ফরম আনতে হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। ততক্ষণে অফিস সময় শেষ হয়ে যাওয়ায় তারা নমিনেশনপত্র ক্রয় করতে ব্যর্থ হন। তারা তফশীলের মেয়াদ বৃদ্ধি করে আগ্রহীদের নির্বাচনে অংশ গ্রহনের সুযোগ দানের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। এদিকে অভিযোগ পাওয়ার পর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মীর আলিফ রেজা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে দায়িত্ব দিয়েছেন। অভিযোগকারীরা জানান, প্রধান শিক্ষক অভিযোগপত্রে স্বাক্ষরকারীদের ছেলে-মেয়েদের ও ঐ সমস্ত অভিভাবকদের উপর চাপ প্রয়োগ ও ভয়ভীতি দেখিয়ে অভিভাবকদেরকে কৌশলে অভিযোগপত্রে স্বাক্ষর করেনি মর্মে লিখিত কাগজে স্বাক্ষর করিয়ে নিচ্ছে বলে দাবী করেন।