আবাদেরহাটের দর উঠেছে প্রায় কোটি টাকা!


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৯ ||

নিজস্ব প্রতিনিধি: এবার ২৪২৬ বাংলা সালের পহেলা বৈশাখ হতে ৩০ চৈত্র মাস পর্যন্ত সদর উপজেলার আবাদেরহাট ইজারা দর উঠেছে প্রায় এক কোটি টাকা। প্রথম দিনে সর্বোচ্চ প্রায় কোটি টাকার দরপত্র জমা পড়ে। সূত্র জানায়, চলতি বছরে গত ৩০ জানুয়ারি পত্রিকার বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে আবাদেরহাট ইজারা দরপত্র আহ্বান করা হয়। গত ১৩ ফেব্রুয়ারি দরপত্র দাখিল ও একইদিন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অফিসে হাট ইজারা দরপত্র টেন্ডার জমা প্রদান এবং গণ্যমান্যব্যক্তিদের উপস্থিতে টেন্ডার বক্স খোলা হয়। এতে প্রথম দিনে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ও এসিল্যান্ড কর্মকর্তা রনি আলম নুর ও অন্যান্য কর্মকর্তাগণ। দরপত্র প্রথম দিনে আবাদেরহাট ইজারা দরপত্র টেন্ডার জমা প্রদান করেন ৩ জন। দরপত্র টেন্ডার জমা প্রদান ব্যক্তিরা হলেন আবাদেরহাট ব্যবসায়ী অনিত ঘোষাল ৭৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা, তাপস কুমার আচার্য ৭৫ লাখ টাকা ও অরবিন্দু কুমার মন্ডল ৪০ লাখ টাকা। এই ৩ জনের মধ্যে সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকার দরপত্র জমা দেন তাপস কুমার আচার্য। তবে এবার আবাদেরহাট সর্বোচ্চ দরপত্র ৭৫ লাখ টাকারসহ সংযুক্ত ভ্যাট দিয়ে প্রায় এককোটি টাকা মূল্য আবাদেরহাট এই টেন্ডার ফাইনাল হলে অনেকে ব্যবায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে জানান। এদিকে আবাদেরহাট ইজারা গত বছরের চেয়ে এবার অনেক বেশি মূল্যে দরপত্র আহ্বান হওয়ায় অনেকে টেন্ডার নিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছেন। সূত্র আরও জানায়, গত বছরে ৫৯ লাখ টাকা আবাদেরহাট ইজারা পেয়েছিলেন অনিত ঘোষাল নামে একজন ব্যবসায়ী। এবার সেই হাট বছরে প্রায় এককোটি টাকা মূল্য উঠায় পশু ব্যবসায়ী ও অন্যান্য সাধারণ ব্যবসায়ীরা আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। কেননা এই কোটি টাকা মূল্যের ইাটইজারা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত পশু হাটের খাজনাসহ অন্যান্য জায়গার খাজনা আদায় করা হবে। ফলে এর প্রভাব পড়বে ব্যবসায়ীদের উপর।