দেখবে কে!: চিংড়ি ঘেরের লবণ পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বোরো ধানের ক্ষেত


প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৯ ||

শ্যামনগর প্রতিনিধি: চিংড়ি ঘেরে লবণ পানি উত্তোলনের কারণে শ্যামনগর উপজেলার নিজদেবপুর এলাকায় বোরো ধানের ক্ষেত ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এমন অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্থ ক্ষেত মালিক মো. শামিমুল হাসান শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট ১৮ ফেব্রুয়ারি লিখিতভাবে বিষয়টি জানিয়ে প্রতিকার দাবি করেছে। দরগাহপুর গ্রামের মৃত নেছার উদ্দীন গাজীর ছেলে শামিমুল হাসান জানান, দীর্ঘদিন ধরে নিজদেবপুর গ্রামে নিজ মালিকানাধীন দুই একর জমিতে তিনি বোরো ধানের চাষ করছেন। বিপরীতে তার প্রতিবেশী আব্দুল ওয়াদুদ উক্ত বোরো ধানের ক্ষেতের বিপরীত অংশে লবণ পানি উত্তোলন করে চিংড়ি ঘের পরিচালনা করছেন।
শামিমুলের অভিযোগ কৃষি জমির ক্ষতিসাধন করে লবন পানির প্রবেশ ঘটিয়ে চিংড়ি ঘের পরিচালনার বিষয়ে সরকারের স্পষ্ট নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও আব্দুল ওয়াদুদ তাতে কর্ণপাত করছেন না। বরং পাশের ঠাকুনতলা খালের লবণ পানি চাষের জমির পাশে জমিতে প্রবেশ করানোর মাধ্যমে তার কৃষিক্ষেত ধ্বংসের ষড়যন্ত্র করছে। তিনি আরও অভিযোগ করেন, আব্দুল ওয়াদুদের চিংড়ি ঘেরের কোন ‘আউট ড্রেন’ না থাকায় লবণ পানি ‘চুইয়ে’ পাশের বোরো ক্ষেতে প্রবেশ করায় শুরু থেকে বোরো ধানের ফলন ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে আসছে। বিষয়টি বার বার উক্ত চিংড়ি ঘের মালিককে অবহিত করার পরও তিনি পাশের বোরো ফসলের ক্ষেত ক্ষতিগ্রস্ত হওযার বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেননি। বাধ্য হয়ে তিনি লবণ পানির প্রবেশ ঘটিয়ে ফসলী জমির ক্ষেত ক্ষগ্রিস্থ হওয়ার বিষয়ে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন বলে দাবি করেন। এবিষয়ে ঘের মালিক আব্দুল ওয়াদুদ এর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ‘রিসিভ’ করেননি।