তৃতীয় ধাপে ১১৭ উপজেলায় ভোট আজ জেলায় আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী আ.লীগই: প্রার্থী ৭৭


প্রকাশিত : মার্চ ২৪, ২০১৯ ||

ন্যাশনাল ডেস্ক: পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে আজ রোববার সাতক্ষীরা জেলার ৭টি উপজেলাসহ ১১৭ উপজেলায় ভোট গ্রহণ করা হবে। এর মধ্যে ২৪ উপজেলায় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত বিজিবি ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। শনিবার বিকেলে নির্বাচন ভবনে আয়োজিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।
তৃতীয় ধাপে নির্বাচনের জন্য ১২৭ উপজেলার তফসিল ঘোষণা করা হয়েছিল। এর মধ্যে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া ও কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলার নির্বাচন আদালতের আদেশে স্থগিত করা হয়েছে। আর নরসিংদী সদর ও কক্সবাজার সদরের ভোট আগামীকালের পরিবর্তে ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপে গ্রহণ করা হবে। এ ছাড়া ছয়টি উপজেলার সবকটি পদের প্রার্থীরা বিনা ভোটে জয়ী হয়েছেন। তাই কাল ১১৭টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ করা হবে।
নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে সচিব বলেন, নির্বাচনের আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে ইসি কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২৪ উপজেলায় অতিরিক্ত বিজিবি ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া নিয়োগ করা হয়েছে অতিরিক্ত নির্বাহী হাকিমও। ১৮ মার্চ উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ভোটের দিন রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে ব্রাশফায়ারে সাতজন নিহত হওয়ার প্রেক্ষাপটে ইসি এই সিদ্ধান্ত নিল।
সচিব বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু করার স্বার্থে অভিযোগের ভিত্তিতে নয়টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও তিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ইসির নির্দেশে প্রত্যাহার করা হয়। এ ছাড়াও বেশ কয়েকজন ওসি এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। আইন অমান্য করে প্রচারে অংশ নেওয়ায় এ পর্যন্ত তিনজন সাংসদকে সতর্ক করে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তাঁরাও আইনে প্রতি সম্মান দেখিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই নির্বাচনী এলাকা ত্যাগ করেছেন। তাই ইসিকে অন্য কোনো অ্যাকশনে যেতে হয়নি। সচিব জানান, তৃতীয় ধাপে রংপুর সদর, গোপালগঞ্জ সদর, মানিকগঞ্জ সদর ও মেহেরপুর সদরে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ভোট গ্রহণ করা হবে।
এদিকে জেলার ৭টি উপজেলায় দু’একটি ব্যতিক্রম ছাড়া এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কোন দল অংশ নিচ্ছে না। ফলে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগেরই। জেলার সাত উপজেলায় ৫৯৭টি কেন্দ্রে ৩০৫০টি কক্ষে ১৫ লাখ ৬০ হাজার ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সাতক্ষীরা সদরে ৩ জন চেয়ারম্যান, ৬ জন ভাইস চেয়ারম্যান ও ৩ জন নারী ভাইস চেয়ারম্যান অংশ গ্রহণ করছেন। কলারোয়ায় চেয়ারম্যান পদে ২জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২জন এবং ন্রাী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। তালা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ২ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। আশাশুনিতে চেয়ারম্যান পদে ২জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। কালিগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। দেবহাটায় চেয়ারম্যান পদে ৫জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। শ্যামনগরে চেয়ারম্যান পদে ২জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।
প্রার্থীদের মধ্যে শ্যামনগরে জাতীয় পাটির একজন এবং দেবহাটায় এনপিপি একজন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এছাড়া আর প্রায় সকল প্রার্থীই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত রয়েছে।
এদিকে, সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণের জন্য জেলায় ৬ স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলেছে প্রশাসন। সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক ভোটকেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসারের হাতে গতকাল সকাল থেকে ব্যালট বক্স, ব্যালটসহ বিভিন্ন নির্বাচন সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। দায়িত্বভার বুঝিয়ে দেওয়া হয় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ, আনছার ভিডিপি সদস্যদের।
সাতক্ষীরা জেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারি রিটাণিং অফিসার মোঃ নাজমুল কবির বলেন, জেলা ৫৯৭ টি ভোট কেন্দ্রের জন্য নির্বাচন প্রস্তুতি ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। ভোট কেন্দ্রগুলোতে নির্বাচন সামগ্রী পাঠানোর কাজ শুরু হয়েছে। রোববার শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণের কাজ শেষ হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মো. সাজ্জাদুর রহমান জানান, জেলব্যাপী ৫শ’ ৯৭ টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪শ’ ২৯ টি কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহিৃত করেছে পুলিশ। ঝুুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। তিনি জানান, জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পুলিশের পূর্ণ নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। যেকোন মুল্যে আজ ২৪ মার্চের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণ হবে।
নির্বাচনে প্রত্যেক কেন্দ্রে ১২ জন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে বাড়তি আরো দু’জন অস্ত্রধারি সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। এছাড়া প্রতি দু’ইউনিয়নে একজন করে পরিদর্শকের নেতৃত্বে মোবাইল টিম দায়িত্ব পালন করবেন। প্রত্যেকটি থানায় ১০ জন পুলিশের একটি টিম টহল দেবেন। প্রতি থানায় ২০ সদস্য বিশিষ্ট বিজিবি’র টিম ও র‌্যাবের টিম টহলে থাকবেন। এছাড়া প্রত্যেকটি থানায় জুডিশিয়াল/নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে তিনটি টিম ও একটি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হবে।
২৪ মার্চ রবিবার অনুষ্ঠিতব্য তৃতীয় ধাপের এই উপজেলা নির্বাচনে সাতক্ষীরার ৭টি উপজেলায় ১৫ লাখ ৬০ হাজার ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।