পিন্টুর অভিযোগ: আশাশুনিতে প্রিজাইডিং অফিসারদের কাছে এক হাজার করে ব্যালেট চেয়েছে পুলিশ


প্রকাশিত : মার্চ ২৪, ২০১৯ ||

পত্রদূত ডেস্ক: আশাশুনিতে পুলিশের বিরুদ্ধে প্রিজাইডিং অফিসারদের কাছে ১ হাজার করে ব্যালট পেপার নৌকায় সিল মারার জন্য চাওয়ায় ভোটের পূর্বেই অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তাকে প্রত্যাহারসহ দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী এড. শহীদুল ইসলাম পিন্টু। গতরাতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সংশ্লিষ্ঠ রিটার্নিং অফিসারের কাছে এ ব্যাপারে জরুরী ই-মেইল পাঠিয়েছেন বলে তিনি দৈনিক পত্রদূতকে জানিয়েছেন। তবে জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল বলেন, অভিযোগের বিষয়টি শুনেছি। তবে, আমার ফাইলে এখনো (রাত ১২টা) আসেনি। তিনি আরো বলেন, কোন ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করা হলে যারা করবে শুধু তারা নয় সংশ্লিষ্ঠ প্রার্থীকেই গ্রেপ্তার করা হবে। তিনি আরো বলেন, বিষয়টি পুলিশ সুপারকে জানানো হয়েছে। এমন ধরনের ঘটনা ঘটলে সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তাকে দায়দায়িত্ব গ্রহণ করতে হবে।
এড. মোঃ শহীদুল ইসলাম পিন্টু তার অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, তিনি আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী। গত রাত ৭/৮টার মধ্যে আশাশুনি থানার পুলিশ প্রিজাইডিং অফিসারগণের নিকট থেকে ১ হাজার করে ব্যালট পেপার নৌকায় সিল মারার জন্য দিতে হবে মর্মে জানিয়ে দিয়েছেন। ব্যালট পেপার চাওয়ার সময় প্রিজাইডিং অফিসারদের পুলিশ বলেছে বলেছে উপরের নির্দেশ আছে। রাত ১০টার দিকে পুলিশ বিভিন্ন কেন্দ্রে ১ হাজার ব্যালট পেপার নিয়ে নৌকায় সিল মারার জন্য ভোট কেন্দ্রে পুলিশসহ নৌকা প্রতীকের কর্মীদের পাঠিয়েছেন। এড. মোঃ শহীদুল ইসলাম পিন্টু আরো বলেন বিভিন্ন প্রিজাইডিং অফিসারদের সঙ্গে কথা বলে এর সত্যতা পেয়েছি। প্রিজাইডিং অফিসাররা চরম আতংকের মধ্যে সময় কাটাচ্ছে। এক্ষুণি উক্ত অফিসারদেরকে প্রত্যাহারসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন জানাচ্ছি। আশাশুনি থানার পুলিশের এহেন কর্মকান্ডে বিশ্বাস জম্মেছে যে, সরকারের ঘোষিত অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন আশাশুনি থানায় আদৌ হওয়ার কোন সম্ভাবনা নাই।
এব্যাপারে আশাশুনি থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব দেবনাথের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি মোবাইল ফোন রিসিভ করেননি।