পাইকগাছায় টেন্ডার ছাড়াই গাছ কাটার অভিযোগ


প্রকাশিত : এপ্রিল ১, ২০১৯ ||

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি: নিয়মনীতি উপপেক্ষা করে পাইকগাছা উপজেলা পরিষদের সামনের কয়েকটি গাছ কাঁটার অভিযোগ উঠেছে। টেন্ডার ছাড়াই গাছ কর্তন করায় জনমনে নানা প্রশ্ন দানা বেঁধেছে। কর্তনকৃত গাছের আনুমানিক মূল্য লক্ষাধিক টাকা হবে বলে অনেকে ধারণা করছেন।
জানা গেছে, উপজেলা পরিষদের নির্মাণাধীন প্রধান গেইটের ডান পাশে দুটি বড় মেহগনী ও একটি নারিকেল গাছ টেন্ডার ছাড়া এবং উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই ছুটির দিনে কাটা হয়েছে। গাছ কাটার পরে উক্ত জায়গা সুক্ষ্মভাবে ভরাট করা হয়েছে। কোথায় গাছ ছিল তা নির্দিষ্ট জায়গা নির্ণয় করা খুবই কঠিন। বড় দুটি গাছ কর্তন করায় উপজেলা সর্বত্র আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে। গাছ কাটার বিষয় উপজেলা বন কর্মকর্তা প্রেমানন্দ রায়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, উপজেলা পরিষদের গাছ কাটার বিষয় তিনি কিছু জানেন না বলে জানান। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুলিয়া সুকায়নার সরকারি টেলিফোনে একাধিকবার ফোন করলেও ফোন রিসিভ হয়নি। এক পর্যায়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আব্দুল আউয়াল ফোনটি রিসিভ করলে তার কাছে গাছ কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাস্তা প্রশস্ত করার জন্য গাছ কাটা হয়েছে। উপজেলা পরিষদের মাসিক সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক। এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান অবগত আছেন। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রায় অর্ধশতাধিক মরাগাছ দীর্ঘদিন ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এ সকল গাছ কাটার জন্য উপজেলা পরিষদকে অবহিত করলেও ঝুকিপূর্ণ গাছগুলো কাটার জন্য কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। তবে ছুটির দিনে উপজেলা পরিষদের মূল্যবান মেহগনী গাছ কর্তন করায় জনমনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান এড. স ম বাবর আলী বলেন, উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় গাছ কাটার বিষয়ে রেজুলেশন করা হয়েছে। গাছ কাটার বিষয় পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর জানান, বন বিভাগ, জেলা ও বিভাগীয় কমিটিতে গাছ কাটার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পর বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন লাগে। অনুমোদন পেলে টেন্ডারের মাধ্যমে সরকারি গাছ কাটা হয়। এভাবে গাছ কাটা অনিয়ম। তাছাড়া তিনি আরো বলেন, শুধু এই গাছ না, প্রাণি সম্পদ অফিসের সামনে থেকে আরো কয়েকটি গাছ কাটা হয়েছে। এ নিয়ে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগের প্রস্তুতি চলছে। কাছ কাটার বিষয়ে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এলাকাবাসি জোর দাবি জানিয়েছে।